রবিবার, ২১ অক্টোবর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৮, ০৮:৩৮:৪৪

বান্দরবানে প্রতিমায় তুলির আঁচড়ে ব্যস্ত শিল্পীরা, সাজ সাজ রব সনাতনীদের মাঝে

বান্দরবানে প্রতিমায় তুলির আঁচড়ে ব্যস্ত শিল্পীরা, সাজ সাজ রব সনাতনীদের মাঝে

বান্দরবানঃ-হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজার আর বাকি কয়েকটা দিন। তিথি গণনায় এবার শরতের প্রায় শেষ দিকে শারদীয় দুর্গোৎসব। আর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বান্দরবানে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যেই প্রতিমা তৈরি কাজ শেষ করতে পেরেছেন কারিগররা। এখন চলছে রং তুলির খেলা। মাটির তৈরি দেবী দুর্গাসহ প্রতিটি মূর্তিতে শিল্পীর তুলির নিপুণ আঁচড়ে ফুটে উঠছে জীবন্ত রূপ। সামান্য বৃষ্টির কারণে কিছুটা ধীরগতিতে চলছে রং তুলির কাজ।
এ বছর বান্দরবান জেলায় ২৭টি পূজা মন্ডপে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিটি মন্ডপে দুর্গা দেবীর মূর্তির পাশাপাশি আরও ৬-৭টি মূর্তি থাকায় প্রতিটিকেই রংয়ের আঁচড়ে স্বরূপে ফেরাতে নির্ঘুম রাত কাটছে কারিগরদের। শেষ মুহূর্তে প্রতিমাগুলোকে রাঙাতে শিল্পীরা ছুটে যাচ্ছেন এক মন্ডপ থেকে অন্য মন্ডপে। বান্দরবানের প্রতিটি পূজা মন্ডপেই এখন শেষ সময়ের ব্যস্ততা, চলছে সাজানো-গোছানোর কাজ।
কথা হয় বান্দরবান কেন্দ্রীয় পূজা মন্ডপের প্রতিমা তৈরির কারিগর মঙ্গল পালের সাথে। এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় খুব ভালভাবেই প্রতিমা তৈরি ও শুকানোর কাজ শেষ করতে পেরেছি। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের রংয়ের কাজ, সাজানো-গোছানো কাজ। অপরদিকে এ কাজে দক্ষ কারিগর না থাকায় নিজেদেরই বেশি পরিশ্রম করতে হচ্ছে, তবে প্রতিমা তৈরি হলে ও তিনদিন বৃষ্টি থাকায় রং করতে আমাদের বেগ পেতে হচ্ছে।
বান্দরবান কেন্দ্রীয় দূর্গাপূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সৌরভ দাশ শেখর বলেন, আমরা পূজাকে ঘিরে সার্বিক প্রস্তুুতি গ্রহণ করেছি, আশা করি এবারের পূজা প্রতিবারের চাইতে আরো ভিন্নতা পাবে এবং সনাতন ধর্মালম্বী ও জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকলের আশা পূরণ করতে পারবে।
বান্দরবান কেন্দ্রীয় দূর্গাপূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি লক্ষীপদ দাশ জানান, প্রতিবারের মত ব্যাপক আয়োজনে এবারে ও আমরা আমাদের বৃহত্তম এই দূর্গাপূজা উদযাপন করবো। ইতিমধ্যে আমরা আমাদের ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছি, আশা করি বর্ণিল আয়োজনে সপ্তাহব্যাপী এই দূর্র্গাপূজা বান্দরবানে উদযাপন হবে।
বান্দরবানের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকির হোসেন মজুমদার বলেন, আসন্ন দূর্গাপূজা সুন্দর ও সুষ্ঠভাবে উদযাপনের জন্য আমাদের সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, আমরা জেলার সকল উপজেলার দূর্গাপূজা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সাথে বসে মতবিনিময় সভা করেছি এবং সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা পর্যাপ্ত নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছি।   
গেল সোমবার (৮ অক্টোবর) মহালয়া। আর মহালয়ার মধ্য দিয়েই দেবীপক্ষ শুরু। আগামী ১৫ অক্টোবর (সোমবার) ৬ষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে, সন্ধ্যায় বান্দরবান রাজার মাঠে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি পূজার শুভ উদ্বোধন, মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জলন ও দেবীর মুখোন্মোচন হবে আর এরপরই অনুষ্ঠানে দেবীস্তুতি পাঠ করবেন বাঙ্গালহালিয়া জোতিশ্বর বেদান্ত মঠ ও মিশনের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ স্বামী অভেদানন্দ ব্রহ্মচারী মহারাজ।
নিযমানুযায়ী ১৬ অক্টোবর মঙ্গলবার মহাসপ্তমী, ১৭ অক্টোবর বুধবার মহাঅষ্টমী, ১৮ অক্টোবর বৃহস্পতিবার মহানবমী ও ১৯ অক্টোবর শুক্রবার দশমী অনুষ্ঠিত হবে। এ বছর দেবীর আগমন ঘোটকে চড়ে (যার ফল-ছত্রভঙ্গ চরমাগমে) এবং প্রত্যাগমন  হবে দোলায় চড়ে।

এই বিভাগের আরও খবর

  রাজবন বিহারে ৪৫তম কঠিন চীবর দান উদযাপনে রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের প্রস্তুতিমূলক সভা

  সরকার ক্ষমতায় থেকে আগামী নির্বাচনের নীল নকশা তৈরী করতে যাচ্ছে

  নাইক্ষ্যংছড়ির পাহাড়ী পল্লীতে চলছে প্রবারনা পূর্ণিমার প্রস্তুতি

  বিলাইছড়ির কুতুবদিয়ায় পানীয় জলের তীব্র সংকট

  ক্রীড়াপ্রেমীরা কখনও সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও মাদকের সাথে জড়িত হতে পারে না-কংজরী চৌধুরী

  কেন্দ্রীয় বিএনপির নেতা দীপেন দেওয়ানের তৃণমূল পর্যায়ে সভা সমাবেশ

  রাঙ্গামাটিতে প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুর, আটক-২

  দীঘিনালায় ভারতীয় পণ্যসহ আটক-১

  বর্তমান সরকারের আমলে পার্বত্যাঞ্চলে ব্যাপক উন্নয়ন সম্পাদন করছে-বীর বাহাদুর এমপি

  কাপ্তাই হ্রদে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হল শারদীয় দুর্গোৎসব

  তপোবন অরণ্য কুটিরে প্রবারণানুষ্ঠান উদযাপন



 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন