মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ১৯ জুলাই, ২০১৭, ০৮:২৮:১০

সোশ্যাল মিডিয়া ‘তরুণদের মধ্যে উদ্বেগ বাড়াচ্ছে’

সোশ্যাল মিডিয়া ‘তরুণদের মধ্যে উদ্বেগ বাড়াচ্ছে’

ডেস্ক রির্পোটঃ-ফেসবুক-টুইটারের মতো সোশ্যাল মিডিয়াবা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম তরুণ তুর্কীদেরকে আরো উদ্বিগ্ন করে তুলছে বলে এক গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে।
ডিচ দ্য লেবেল নামের একটি অ্যান্টি-বুলিয়িং বা পীড়ন-বিরোধী দাতব্য সংস্থা এই গবেষণাটি চালিয়েছে।
বুধবার (১৯ জুলাই) যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ খবর প্রকাশ করেছে।
খবরে বলা হয়, এই গবেষণা জরিপে অংশ নেওয়াদের মধ্যে ৪০ শতাংশই বলছে, কেউ যদি তাদের সেলফিতে লাইক না দেয়, তাহলে তারা খারাপ বোধ করে। আর ৩৫ শতাংশ বলছে তাদের কি পরিমাণ ফলোয়ার বা অনুসারী তার উপর সরাসরি নির্ভর করে তাদের আত্মপ্রত্যয়ের ব্যাপারটি।
প্রতি তিন জনে একজন বলছে তারা সারাক্ষণই সাইবার-বুলিয়িংয়ের বা পীড়নের আতঙ্কে থাকে।
খবরে আরও বলা হয়, একজন বিশেষজ্ঞ বলছেন, সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে শিশুরা 'বৈরিতার সংস্কৃতির' মধ্যে বেড়ে উঠছে।
দশ হাজার তরুণ তরুণীর উপর এই জরিপটি চালানো হয়। এদের বয়েস ছিল ১২ থেকে ২০ এর মধ্যে। এই জরিপে বেরিয়ে এসেছে সাইবার-বুলিয়িং ব্যাপক বিস্তৃতি লাভ করেছে।
৭০ শতাংশ অংশগ্রহণকারী স্বীকার করেছে যে তারা অনলাইনে অন্যের উপর নিপীড়নমূলক আচরণ করে।
আর ১৭ শতাংশ দাবী করেছে তারা অনলাইনে পীড়নের স্বীকার হয়েছে।
অর্ধেকই বলেছে যে তারা অনলাইনে তাদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া খারাপ আচরণগুলো নিয়ে আলোচনা করতে চায় না।
গবেষণায় আরো জানা যাচ্ছে, ঘৃণা ছড়ানোর জন্য সবচাইতে বেশী ব্যবহৃত সোশ্যাল মিডিয়া হচ্ছে ইনস্টাগ্রাম।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

অনগ্রসর বিবেচনায় নারী, নৃগোষ্ঠীদের জন্য জন্য সরকারি চাকরিতে যে কোটা রয়েছে, তা তুলে দেওয়ার পক্ষে মত জানিয়ে কোটা পর্যালোচনা কমিটির প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেছেন, অনগ্রসররা এখন অগ্রসর হয়ে গেছে। আপনি কি তার সঙ্গে একমত?