শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ০৮:২১:৫৯

রাতের আধাঁরে মাতৃবৃক্ষ গর্জন গাছ পাচারকালে আটক

রাতের আধাঁরে মাতৃবৃক্ষ গর্জন গাছ পাচারকালে আটক

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, লামাঃ-বান্দরবানের লামা বন বিভাগের আওতাধীন আলীকদম মাতামুহুরী রিজার্ভ হতে নদী পথে রাতের আধাঁরে পাচার হচ্ছে মাতৃবৃক্ষ গর্জন সহ চম্পা, চাপালিশ, সিভিট ও তেশল গাছ। ৮০ হতে শতবর্ষী বয়সী এইসব দুর্লভ গাছ প্রশাসনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে গভীররাতে মাতামুহুরী নদী পথে নিয়ে যাচ্ছে কয়েকটি সিন্ডিকেট।  
মঙ্গলবার ভোর রাতে মাতামুহুরী নদী পথে তেমনি দুইটি বড় মাতৃবৃক্ষ গর্জন গাছ পাচার হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযানে নামে লামা বন বিভাগ। পরে আলীকদম তৈন রেঞ্জের আওতাধীন রেপারপাড়া বাজার সংলগ্ন মাতামুহুরী নদী হতে একটি শতবর্ষী মাতৃবৃক্ষ গর্জন গাছ আটক করা হয়। এসময় গাছটি ভাসিয়ে নেয়ার কাজে ব্যবহৃত ১ শতাধিক বাঁশও আটক করা হয়েছে।
তৈন রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা শামসুল হুদা বলেন, জব্দকৃত গর্জন গাছের টুকরোটি ৪০ ফুট লম্বা, ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি বেড় ও ৭১.০২ ঘনফুট জমেছে। আরেকটি গাছের তথ্য পেয়ে, আমরা অভিযানে নেমে অপর গাছটি পাইনি। গাছ চোর সিন্ডিকেট হয়ত কোথাও লুকিয়ে রেখেছে। তবে আমরা সতর্ক অবস্থায় আছি। গাছের সাথে কাউকে না পাওয়ায় আটক করা যায়নি।
স্থানীয়রা জানান, চকরিয়া বাঁশ সমিতির সভাপতি মুজিব এই শতবর্ষী মাতৃবৃক্ষ গর্জন গাছটি রাতের আধাঁরে নিয়ে যাচ্ছিল। খুঁজে না পাওয়া অপর গাছটিও তার। সে আরো অনেক মাতৃবৃক্ষ পাচারের সাথে জড়িত। এই বিষয়ে ব্যবসায়ী মুজিব এর মুঠেফোনে একাধিকবার কল দিলে তিনি রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।  
লামা বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, সারা রাত অভিযান চালিয়ে বন বিভাগের লোকজন গাছটি আটক করেছে। আরেকটি গাছ উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছেন, গুজব সনাক্তকরণে যে সেল করা হয়েছে, তা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে মতপ্রকাশ নিয়ন্ত্রণ বা সোশ্যাল মিডিয়া পুলিশিং করবে না। আপনি কি এতে আশ্বস্ত?