সোমবার, ২৬ আগস্ট ,২০১৯

Bangla Version
SHARE

শুক্রবার, ০২ আগস্ট, ২০১৯, ০৬:৫২:২৫

ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে টেকনাফ ব্যবসায়ীর মৃত্যু

ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে টেকনাফ ব্যবসায়ীর মৃত্যু

টেকনাফঃ-ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় টেকনাফের এক ব্যবসায়ী ঢাকায় মৃত্যু বরন করেছেন। টেকনাফ উপরের বাজারস্থ “মনে রেখ”দোকান মালিকের ছেলে সাতকানিয়ার আবদুল মালেক (৩৫)।
বৃহস্পতিবার (১আগস্ট) সকাল ১১টায় ঢাকা ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। সে সাতকানিয়ার উপজেলার ছদাহা লতা ফকিরপাড়ার বাসিন্দা মাষ্টার আবুল কাশেম সওদাগরের ছেলে। দীর্ঘদিন ধরে টেকনাফে কাপড়ের ব্যবসা করে আসছেন।
নিহতের ভগ্নিপতি মো. পারভেজ জানায়, শরীরে জ্বর অনুভব করায় গত কয়েকদিন আগে চট্টগ্রামের শেভরণে ভর্তি করা হয়। সেখানে পরীক্ষা করে চিকিৎসকরা জানান তিনি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। শেভরণে থেকে তাকে সার্জিস্কোপ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেও তাঁর অবস্থা অবনতি হওয়ায় চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় নেওয়ার পরামর্শ দিলে গত ২৮জুলাই ঢাকা ইউনাইটেড হাসপাতালে হস্তান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় তিনি ইন্তেকাল করেন। তবে সে টেকনাফ নাকি বাড়ীতে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছে তার সঠিক তথ্য জানা যায়।

এই বিভাগের আরও খবর

  কক্সবাজারে যুবলীগ নেতা হত্যাকাণ্ডে জড়িত দুই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী বন্দুকযুদ্ধে নিহত

  প্রস্তুতি সত্ত্বেও প্রত্যাবাসন শুরু হলো নাঃ রোহিঙ্গারা যায়নি দাবিতে অনড়

  ২২ আগস্ট থেকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু

  টেকনাফে পুলিশের গুলিতে মাদক কারবারী নিহত, তিন পুলিশ আহত

  টেকনাফে চিকিৎসকসহ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত-৮

  টেকনাফে রোহিঙ্গা ডাকাত হাকিমের ভাই ও স্ত্রীর গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার

  টেকনাফে গবাদি পশুর হাটঃ মিয়ানমারের গবাদি পশু’র সয়লাব

  টেকনাফ বিজিবির সাথে মাদককাবারীর গুলাগুলিঃ রোহিঙ্গাসহ নিহত-২,আহত-৪

  টেকনাফে পুলিশ-ডাকাত বন্দুকযুদ্ধ নিহত-৪, অস্ত্রসহ আটক-২

  ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে টেকনাফ ব্যবসায়ীর মৃত্যু

  টেকনাফ সাগর উপকুলে গুলাগুলিতে নিহত-১, আহত-২, অস্ত্র, ইয়াবাও অটোরিকসা জব্দ

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তির প্রেক্ষাপটে আইইডিসিআরের সাবেক পরিচালক মাহমুদুর রহমান বলছেন, মৃত্যুর ঘটনাগুলো ‘রিভিউ’ করার কোনো প্রয়োজন নেই, চিকিৎসকদের কথাই যথেষ্ট। আপনি কি তাকে সমর্থন করেন?