রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ২১ জুলাই, ২০১৯, ১২:৩০:০৭

টেকনাফের হ্নীলা ইউপি’র চেয়ারম্যান ও সাবরাংয়ের সংরক্ষিত পদে উপ-নির্বাচন, গণসংযোগে মুখর অলিগলি

টেকনাফের হ্নীলা ইউপি’র চেয়ারম্যান ও সাবরাংয়ের সংরক্ষিত পদে উপ-নির্বাচন, গণসংযোগে মুখর অলিগলি

মুহাম্মদ জুবাইর, টেকনাফঃ-আগামী ২৫ জুলাই  অনুষ্ঠিতব্য হ্নীলা ইউপির চেয়ারম্যান ও সাবরাংয়ের সংরক্ষিত একটি মহিলা সদস্য পদে উপ-নির্বাচন সামনে রেখে প্রচার-প্রচারণায় আর গণযোগে মুখর অলিগলি। সকাল থেকে রাত রাত পর্যন্ত চলছে নিজ নিজ মার্কায় ভোট প্রার্থনা। প্রতিদিন প্রত্যন্ত এলাকায় সুর,ছন্দে গানের মাধ্যমে মাইকিং, উঠান বৈঠকসহ, লিফলেট হাতে প্রার্থী ও তার সমর্থকদের আনন্দমুখর প্রচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে।  নেতা, কর্মী ও সমর্থকদের সাথে নিয়ে ভোটারদের কাছে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। দিচ্ছেন উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি আর ভোটাররাও খুঁজছেন যোগ্য প্রার্থী, যারা সুখে দুঃখে তাদের পাশে থাকবেন। ফলে জমে উঠেছে টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের চেয়াম্যান পদ ও সাবরাং ইউনিয়নের সংরক্ষিত একটি আসনের সদস্য পদে উপ-নির্বাচন। সর্বশেষ চেয়াম্যান পদে ৩ জন ও সংরক্ষিত আসনে মহিলা সদস্য পদে ৩ জন প্রার্থীর হাড্ডা হাড্ডি লড়াই ঠিক যেন পূর্র্নাঙ্গ নির্বাচনেরই আমেজ।
সংশ্লিষ্ট এলাকা ঘুরে দেখা গেছে প্রার্থীদের ব্যাপক প্রচারণার কারনে এখানে নির্বাচনি উত্তাপ ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে। ফেইসবুকসহ সামাজিক যোগাযাগ মাধ্যমে প্রার্থীও তার সমর্থকরা বিভিন্ন স্ট্যটাস দিয়ে দোয়া ও সমর্থন চেয়ে ডিজিটাল প্রচারণার মাধ্যমে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করছেন। হাটে বাজারে চলছে প্রার্থীদের চুলচেরা বিশ্লষেন। বসে নেই কর্মী, সমর্থক ও শুভাকাংখীরা। নিজ নিজ পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে ভোট প্রার্থনায় পিছিয়ে নেই তারাও। রঙ্গিখালীর বাসিন্দা ও সংবাদ কর্মী নাছির উদ্দিন রাজসহ অনেক ভোটারের সাথে কথা বলে জানা যায়, যারা সমাজের অবহেলিক বঞ্চিত মানুষের পক্ষে থাকবে এমন মানুষই প্রতিনিধি নির্বাচিত হোক। সাধারণ মানুষের কথা যে শুনবে, সুখে দুঃখে পাশে থাকবে এমন ব্যক্তিকেই নির্বাচিত করতে চান তারা। চান সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক।
হ্নীলা ইউপির উপ-নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দি চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত রাশেদ মাহমুদ আলী (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী মীর মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (মোটর সাইকেল) ও জালাল উদ্দিন চৌধুরী (আনারস) প্রতীক নিয়ে  ভোটারের বাড়ী বাড়ী গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন। ৩ প্রার্থীর রয়েছে ব্যক্তি ইমেজ। একজন সাবেক সাংসদ ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যাপক মো. আলীর মেঝ ছেলে রাশেদ মাহমুদ আলী নির্বাচনী প্রচারনায় বর্তমান সরকারের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে দলীয় প্রতীক নৌকায় ভোট দেওয়ার আহবান জানান।
সাবেক চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন চৌধুরী ভোটারদের বলেন,আমি ও আমার পরিবার দীর্ঘদিন ধরে অত্র ইউনিয়নের জনগণের সেবায় নিয়োজিত রয়েছি। তারাই আমার সম্পর্কে ভালো জানেন। অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে ইনশাআল্লাহ জনগণের রায়ে আমি বিজয়ী হব বলে আশা ব্যক্ত করেন।
অপরদিকে আরেক সাবেক চেয়ারম্যান মৃত মাষ্টার মীর কাসেম এর পুত্র মীর মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘নিরপেক্ষ ও শান্তিপুর্ণ পরিবেশে যার ভোটাধিকার সে প্রয়োগ করতে পারলে ইনশাআল্লাহ আমি জয়ী হব।’
অপরদিকে সাবরাং সংরক্ষিত ওয়ার্ড-১ এ রয়েছে ৩ মহিলা প্রার্থী। এছাড়া ৪ নং সাবরাং ইউপির (১,২ ও ৩নং) সংরক্ষিত ওয়ার্ডে শাহিনা রহমান বিএ, (মাইক), ছেনোয়ারা বেগম (সূর্যমুখী ফুল) ও আমেনা খাতুন (হেলিকপ্টার) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দীতা করছেন।
উল্লেখ্য, হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান এইচকে আনোয়ার ও সাবরাং সংরক্ষি আসনের আয়েশা বেগম মৃত্যু বরণ করায় পদ দু’টি শূন্য হয়। এই দুই জনপ্রতিনিধির মৃত্যুর ফলে শূন্য ঘোষণা করা হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান ও সাবরাং ১নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে  মহিলা মেম্বার পদে উপনির্বাচন আগামী ২৫ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

  ২ লাখ ইয়াবাসহ ৮ মিয়ানমার নাগিরক আটক, ট্রলার জব্দ

  টেকনাফে বন্দুক যুদ্ধে দুই রোহিঙ্গাসহ তিন সন্ত্রাসী নিহত

  চীনা প্রতিনিধি দলের তুমব্রু সীমান্ত পরিদর্শনঃ মিয়ানমারে ফিরতে নাগরিকত্ব ও নিরাপত্তার দাবি রোহিঙ্গাদের

  মিয়ানমারের সিমে ইন্টারনেট চালাচ্ছে রোহিঙ্গারা

  টেকনাফে প্রবল বর্ষনে পাহাড় ধ্বস ও পানির স্রোতে তিন ’শিশু’র মৃত্যুঃ আহত-১০

  টেকনাফে ১৯ মাদকসেবীকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা

  উখিয়ায় শেড এনজিওর গুদামে বিপুল পরিমাণ ধারালো অস্ত্র

  রোহিঙ্গা মহাসমাবেশে অর্থ সহায়তাঃ দুই এনজিওর কার্যক্রম নিষিদ্ধ

  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিয়োজিত চার কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার

  টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা কুখ্যাত সন্ত্রাসী নূর মোহাম্মদ নিহত

  কক্সবাজারে অস্ত্রসহ ডাকাত সন্দেহে দুই যুবক গ্রেফতার

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

আওয়ামী লীগের দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সরকারের অনেক মন্ত্রী দুদকে হাজিরা দিচ্ছেন, আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মী জেলে আছেন। তার এই বক্তব্যের সঙ্গে আপনি একমত?