বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারী ,২০১৯

Bangla Version
SHARE

মঙ্গলবার, ০৬ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:১০:৩৫

টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ডাকাতের গুলিতে ৩ জন গুলিবিদ্ধ

টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ডাকাতের গুলিতে ৩ জন গুলিবিদ্ধ

কক্সবাজারঃ-কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চিহ্নিত ডাকাত দলের গুলিতে একই পরিবারের ৩জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। আহতদের জেলা ও বিভাগীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।
ক্যাম্প পুলিশ জানায়, সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে উপজেলার মুচনী নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের শীর্ষ ডাকাত সাদেকের নেতৃত্বে সশস্ত্র একটি ডাকাত দল এ হামলা চালায়। তারা আই ব্লকের ৫৫৮নং শেডের ১নং রোমের ৫৩৪৩০নং এমআরসির মৃত মোহাম্মদ হোসেনের পুত্র আজিজুল হক (৫০) তার দ্বিতীয় স্ত্রী তৈয়বা খাতুন (২২) ও ছেলে হোসন জোহারকে (১৪) বাড়িতে ঢুকে হঠাৎ গুলিবর্ষণ করতে থাকে। এক পর্যায়ে পাশ্ববর্তী লোকজনের চিৎকারে ডাকাত দল পালিয়ে যায়।
ব্লক মাঝির নেতৃত্বে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আহতদের উদ্ধার করে ক্যাম্প হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেও অবস্থার অবনতি হওয়ায় জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত ডাক্তার আহত আজিজুল হককে চমেক হাসপাতালে রেফার করেছে বলে জানা গেছে।
ক্যাম্প পুলিশ ইনচার্জ এস আই মোঃ আবু রিদুওয়ান সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গত কিছুদিন আগে ডাকাত সাদিক্ক্যার ভাই ডাকাত জিয়াকে আটকে আইন-শৃংখলা বাহিনীকে সহযোগিতা করায় প্রতিশোধপরায়ন হয়ে সাদিক্ক্যা ন্যাক্কারজনক এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

  রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে জাতিসংঘের বিশেষ দূত

  টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ ইয়াবা কারবারি নিহত

  স্ত্রীকে ঘরে রেখে কিশোরীকে নিয়ে গ্রাম পুলিশ উধাও

  টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে আহত ব্যক্তির হাসপাতালে মৃত্যু

  রোহিঙ্গা শিবির ও আসার পথ পরিদর্শন করলেন জার্মান রাষ্ট্রদূত

  কক্সবাজারে পৃথক অভিযানে ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার, আটক-৩

  বন্ধুকযুদ্ধের মাঝে ও ইয়াবা পাচারঃ “তিন কোটি ষাট লাখ টাকার” ইয়াবাসহ সিএনজি জব্দ

  টেকনাফে ১ লাখ ২০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার

  ১৬ মাসে ৫৮ হাজার রোহিঙ্গাকে ক্যাম্পে ফেরত!

  মিয়ানমারে ফের সেনা অভিযানঃ চলে আসতে পারে আরো ২০ লাখ রোহিঙ্গা!

  ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণে ৫ দিন সময় দিলেন বদি

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বৈষম্য কমাতে নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালুর পরামর্শ দিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান। এটা করা হলে বৈষম্য কমবে বলে মনে করেন?