রবিবার, ২৪ জুন ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ২১ মার্চ, ২০১৭, ০২:২৩:৫৮

চসিকে বাড়তি হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় কার্যক্রম স্থগিত

চসিকে বাড়তি হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় কার্যক্রম স্থগিত

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকায় বর্ধিত হারে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিতাদেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। রুলে বর্ধিত হারে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের কার্যক্রম কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত  বেঞ্চ এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে এ আদেশ দেন।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র ও প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তাকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

উল্লেখ,বর্ধিত হারে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের কার্যক্রমের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদের পক্ষে চার ব্যক্তি গতকাল সোমবার রিট আবেদনটি করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস।

পরে জ্যোতির্ময় বড়ুয়া জানান, রিট আবেদনকারীদের কাছ থেকে বর্ধিত হারে কর আদায়ের বিষয়ে দেওয়া বিভিন্ন নোটিশের কার্যক্রমও ছয় মাসের জন্য স্থগিত করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, হাইকোর্টের একই বেঞ্চ গত ২৪ জানুয়ারি রাজশাহী সিটি করপোরেশনের বর্ধিত হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে।

এই বিভাগের আরও খবর

  চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কের রাউজানে বাস খাদে পড়ে নিহত-৪, আহত-২০

  হাটহাজারীতে অগ্নিকাণ্ডে বসতঘর পুড়ে ছাই, ৩ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

  চট্টগ্রামে মাদকবিরোধী অভিযানে শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ

  জাহাজ ও কন্টেইনার জটের কবলে চট্টগ্রাম বন্দর

  চট্টগ্রামে ছুরিকাঘাতে যুবক খুন

  চট্টগ্রামে গাঁজাসহ গ্রেফতার-২

  চট্টগ্রাম বন্দর এলাকায় শক্তিশালী টর্নেডোর আঘাত, ১০জন আহত

  চট্টগ্রামে ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড় থেকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে ১০০ পরিবারকে

  চট্টগ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু

  পানিতে ভাসছে চট্টগ্রাম শহরের নিম্নাঞ্চলঃ ঈদ বাজারে নাভিশ্বাস

  নকল সোনার বার বিক্রি চক্রের ৩ জন গ্রেফতার

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?