বুধবার, ১৭ জুলাই ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ০৩ মে, ২০১৯, ০৫:১৬:০৯

ঘূর্ণীঝড় ‘ফণী’-৮ লাখ মানুষের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত করেছে জেলা প্রশাসন

ঘূর্ণীঝড় ‘ফণী’-৮ লাখ মানুষের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত করেছে জেলা প্রশাসন

চট্টগ্রামঃ-ঘূর্ণীঝড় ‘ফণী’র আঘাত মোকাবেলায় সব ধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। এর মধ্যে ফণীর আঘাত হানার আশঙ্কায় চট্টগ্রাম কুমিরা ঘাট থেকে সন্দ্বীপ ও হাতিয়ার নৌ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানে ২ হাজার ৭৪৮টি আশ্রয়কন্দ্রে প্রস্তুত করা হয়েছে। এই আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে প্রায় ৮ লাখ মানুষ আশ্রয় নিতে পারবেন।
বৃহস্প্রতিবার (২ মে) সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে `ফণী’র আঘাত মোকাবেলায় বিভিন্ন প্রস্তুতি সম্পর্কে এসব কথা বলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক দেলোয়ার হোসেন।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) দেলোয়ার হোসেন  বলেন, ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সব ধরণের প্রস্তুতি রয়েছে আমাদের। এছাড়া সকাল থেকেই উপকূলীয় এলাকার লোকজনকে নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য এসব আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে মাইকিং শুরু করেছে জেলা প্রশাসনের একাধিক টিম। ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় ১৬ হাজার ৬০০ স্বেচ্ছাসেবক কাজ করবে। এর মধ্যে রেড ক্রিসেন্টের ১০ হাজার এবং সিপিপির ৬ হাজার ৬০০ স্বেচ্ছাসেবক কাজ করবে। ২৮৪টি মেডিক্যাল টিম, ৫০ হাজার পিস পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট এবং এক হাজার ৪০০ পিস হাইজিন কিডসসহ পর্যাপ্ত ওষুধ প্রস্তুত রাখা হয়েছে। আরও এক লাখ পিস পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট সংগ্রহ করা হচ্ছে।
দেলোয়ার হোসেন আরো বলেন, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার সহযোগিতায় প্রাণিসম্পদ রক্ষায় ঔষুধ ও খাবার মজুদ ও সংরক্ষণসহ প্রয়োজনে পশুপাখি নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়ার প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্র ও বিদ্যালয়গুলোতে পর্যাপ্ত বিশুদ্ধ পানির সংস্থান এবং শৌচাগারগুলো ব্যবহার উপযোগী করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগসহ অন্য সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করে সেবাদান অব্যাহত রাখার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

এলডিপি সভাপতি অলি আহমদ বলেছেন, বাংলাদেশে এখন টাকা থাকলে সব রকম অন্যায় করে পার পাওয়া যায়। আপনি কি তা ঠিক মনে করেন?