সোমবার, ১৬ জুলাই ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ০৪ জুলাই, ২০১৮, ০২:১৯:২০

সাংবাদিকদের কর্মসূচিতে সম্পাদক ও পেশাজীবীদের সংহতি

সাংবাদিকদের কর্মসূচিতে সম্পাদক ও পেশাজীবীদের সংহতি

চট্টগ্রামঃ-চট্টগ্রামে ভুল চিকিৎসা ও চিকিৎসকের অবহেলায় মৃত্যুর অভিযোগ উঠা সাংবাদিক রুবেল খানের মেয়ে রাইফা খান হত্যার বিচার দাবিতে সাংবাদিকদের চলমান আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন পেশাজীবী নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ এবং চট্টগ্রামের চারটি স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদক। এর মাধ্যমে সাংবাদিকদের বিচার দাবির আন্দোলন-কর্মসূচি নতুন মাত্রা পায়।
মঙ্গলবার বিকালে শহীদ মিনার চত্বরে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে তারা সংহতি প্রকাশ করতে আসেন। প্রতিবাদ সমাবেশ পরিণত হয় জনসমাবেশে। সমাবেশ শেষে শহীদ মিনার থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে এসে শেষ হয়। পক্ষান্তরে মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে চট্টগ্রামের স্থানীয় চার পত্রিকার সম্পাদকের সঙ্গে সাংবাদিকদের এক মতবিনিময় সভায় চলমান আন্দোলনের প্রতি সংহতি প্রকাশ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদক সম্পাদক ডা. ম রমিজ উদ্দিন চৌধুরী, দৈনিক আজাদীর পরিচালনা সম্পাদক ওয়াহিদ মালেক, সুপ্রভাত বাংলাদেশের সম্পাদক রুশো মাহমুদ এবং পূর্বদেশ সম্পাদক মজিবুর রহমান সিআইপি। চার পত্রিকার সম্পাদক চট্টগ্রামের চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং এর সিস্টেমের আমুল পরিবর্তন আনার কথা বলেন। তাছাড়া রাইফার মৃত্যুর ঘটনায় মেডিকেল মার্ডার কি না তাও খতিয়ে দেখার অনুরোধ জানান।
এদিকে, মঙ্গলবার বিকালে শহীদ মিনার চত্বরে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করেন বিএফইউজের সাবেক মহাসচিব মোল্লা জালাল, নগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা খোরশেদ আলম, ওয়ার্কাস পার্টির নেতা শরীফ চৌহান, যুবলীগ নেতা এ এস এম সাঈদ সুমন, ছাত্রলীগ নেতা হাবিবুর রহমান তারেক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতিসহ বিভিন্ন ছাত্র, রাজনৈতিক, পেশাজীবী, সাংস্কৃতিক সংগঠন।
এর আগে, দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের অনুষ্ঠিত সভায় সভায় পূর্বকোণ সম্পাদক সম্পাদক ডা. ম রমিজ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, রুবেল খানের শোকাহত পরিবারের মতো আমরাও শোকাহত। হাসপাতাল থেকে শিশু রাইফার লাশ বের হয়ে আসলো, বাবার হাতে সন্তানের লাশের ছবি দেখে আমি পাথর, স্তব্ধ ও বাকরুদ্ধ হয়ে যাই। আশা করি এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হবে। যারা ইচ্ছা-অনিচ্ছাকৃতভাবে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদের বিচার চাই।
আজাদীর পরিচালনা সম্পাদক ওয়াহিদ মালেক বলেন, রুবেল খানের কন্যার মৃত্যুতে আজাদী পরিবার শোকাহত। আমরা সকল সাংবাদিকদের সঙ্গে আছি। রুবেল খানের কন্যার মতো অভিযোগ উঠা সকল মৃত্যুর তদন্ত হউক। এ ঘটনায় দায়ীদের বিচার চাই।
সুপ্রভাত বাংলাদেশের সম্পাদক রুশো মাহমুদ বলেন, যেসব তথ্য-উপাত্ত এখন পর্যন্ত পেয়েছি আমি নিশ্চিত ভুল চিকিৎসা ও অবহেলার কারণে রাইফার মৃত্যু হয়েছে। এটা মেডিকেল মার্ডারের পর্যায়ে পড়ে কি না তা তদন্ত কমিটিকে খতিয়ে দেখার অনুরোধ করছি। এখন পেশাজীবী সংগঠনের মধ্যে রাজনৈতিক প্রভাব থাকায় অযোগ্য ও বিতর্কিত মানুষজন নেতৃত্বে চলে আসছে। এসব বিতর্কিত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে তাদের অতীত-বর্তমান সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরার পর্যায়ে চলে এসেছে।
পূর্বদেশ সম্পাদক মজিবুর রহমান বলেন, আমরা একজন মানুষ। নৈতিক মানুষ হিসেবে শিশু রাইফা অবহেলায় মৃত্যুর বিচার চাই। এ ঘটনায় পূর্বদেশ পরিবার সাংবাদিক সমাজের সঙ্গে রয়েছে।
তাছাড়া সভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল, সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সহ-সভাপতি শহীদ উল আলম, সিইউজের সাবেক সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, সিইউজের যুগ্ম সম্পাদক সবুর শুভ প্রমুখ।

এই বিভাগের আরও খবর

  চট্টগ্রামে আবাসিক হোটেল থেকে ২৫ রাউন্ড গুলিসহ একজন গ্রেফতার

  চট্টগ্রামের বাশঁখালীতে চলন্ত ট্রাকে আগুন, নিহত-৩

  চট্টগ্রামে বেসরকারি হাসপাতালের ধর্মঘট স্থগিত

  সাংবাদিক কন্যা রাইফা 'হত্যাকাণ্ড': গাফেলতি অবহেলার প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি

  সাংবাদিকদের কর্মসূচিতে সম্পাদক ও পেশাজীবীদের সংহতি

  চন্দনাইশে ব্রিজের র‌্যালিং ভেঙ্গে ট্রাক খালে

  চট্টগ্রামে ম্যানহোলে কিশোর, ২ ঘণ্টা পর উদ্ধার

  টানা বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়ক যোগাযোগ বন্ধ

  রাউজানে পানিবন্দী লাখো মানুষের পাশে ফজলে করিম চৌধুরী

  চট্টগ্রামে ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু, তিন দফা দাবি সিইউজের

  চট্টগ্রামে ভুল চিকিৎসায় শিশু মৃত্যুর ঘটনার তদন্ত শুরু

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?