রবিবার, ২৪ মার্চ ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ০৮:১৩:২২

প্রার্থিদের অভিযোগের স্তুপ চট্টগ্রাম রিটার্নিং অফিসারের কাছে

প্রার্থিদের অভিযোগের স্তুপ চট্টগ্রাম রিটার্নিং অফিসারের কাছে

চট্টগ্রামঃ-পোস্টার লাগাতে না দেওয়া, হত্যার হুমকি, মামলা-হামলাসহ বিভিন্ন অভিযোগ করেছেন মহানগর ও সংলগ্ন এলাকার ৬টি সংসদীয় আসনসমূহের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার ও রিটার্নিং অফিসার মো. আবদুল মান্নানের সাথে মতবিনিময়কালে এ অভিযোগগুলো করেন তারা।
সোমবার (১৭ ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে বিভাগীয় কমিশনার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবদুল মান্নানের সভাপতিত্বে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
চট্টগ্রাম-১১ আসনের বিএনপি প্রার্থী আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, আমাদের নেতা-কর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে কারা তা আপনাদের দেখতে হবে। আমি যেখানে যাই সেখানে মোবাইলে ভিডিও করছে পুলিশ, যারা সুরক্ষা করবে তারা কেন গোয়েন্দা গিরি করছে? চট্টগ্রামের একটা ঐতিহ্য আছে, কিন্তু সেটি কি আমরা ধরে রাখতে পেরেছি? ত্রিশ তারিখ পর্যন্ত আপনারা গ্রেফতার অভিযান বন্ধ করুন।
চট্টগ্রাম-১০ আসনে বিএনপি প্রার্থী আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে। কিন্তু আমরা প্রশাসনের আশ্রয় চাওয়ার পরও আশ্রয় পাইনি। প্রথমদিন থেকে পোস্টার-ব্যানার ছিড়ে ফেলছে পুলিশ এবং আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। মুক্তিযোদ্ধা ছিলাম আমি, কারাদ-ও ভোগ করেছি তারপরেও যদি আমরা বিজয় দিবস পালন করতে না পারি তাহলে তার চেয়ে দুঃখজনক কিছুই নেই। গতকালকে যখন নয়াহাটে বিজয় র‌্যালি করলাম তখন লাঠিসোঁটা দিয়ে ধাওয়া করলো আওয়ামী কিছু ছাত্র যুবক। আমরা অভিযোগ করলে পুনরায় আমাদেরকে কথা শুনতে হয়। যারা কাজ করছে তাদেরকে গায়েবি মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। আমি বলেছি, কোন অভিযোগ থাকলে দিন, আমি জেলগেটে পৌঁছে দিব।
সভায় চট্টগ্রাম-৫ আসনে বিএনপির প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, পোস্টার লাগাতে না দেয়া, পা ভেঙে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়। কর্মীরা যাতে আতঙ্কে না থাকে সেদিকে আপনাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। মামলা হামলা ধমকের কারণে নেতাকর্মীদের মাঠে পাচ্ছি না।
এছাড়া চট্টগ্রাম-৮ আসনের ইসলামিক ফ্রন্ট প্রার্থী জনগণের মাঝে অজানা উৎকন্ঠা বিরাজ, চট্টগ্রাম-১০ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ভোটকেন্দ্রে যেতে সংশয়বোধ, চট্টগ্রাম-৯ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইভিএম এর ব্যবহার সম্পর্কে প্রপার ট্রেনিং দেয়ার জন্য বিভাগীয় কমিশনারের কাছে অনুরোধ করেন।
অপরদিকে, চট্টগ্রাম-৮ আসনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী এমপি মইনুদ্দিন খান বাদল প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের এসব অভিযোগ অস্বীকার করে নির্বচনী পরিবেশ সুষ্ঠু  আছে বলে দাবি করেন। তিনি বলেন, কাউকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হচ্ছে না।
চট্টগ্রাম-৯ আসনে আ.লীগ প্রার্থী মুহিবুল হাসান বলেন, ভয়ভীতির কোন কিছু তো আমি দেখছি না, আমি যতবার এলাকায় গিয়েছি তখন প্রচারণায় সব দলের স্বতঃস্ফূর্ত  অংশগ্রহণ দেখেছি। এছাড়া ইভিএম এর ব্যাপারে মানুষের মনে ভয়ভীতি ঢুকিয়ে দেয়া হচ্ছে বলেও তিনি দাবি করেন।
সভায় আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান বলেন, আজ থেকে ইভিএম এর প্রদর্শনী এবং ব্যবহার শুরু হয়েছে যা আগামি ২৭ তারিখ পর্যন্ত চলবে। চট্টগ্রামের সকল প্রার্থীদের এজেন্টদের তালিকা দিবেন, তাদেরকে নির্বাচন সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।
সভায় বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নান বলেন, আমরা আমাদের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে। সুন্দর, নিরপেক্ষ নির্বাচন দেয়ার জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। তবে এতে আপনাদের সহযোগীতা দরকার।

এই বিভাগের আরও খবর

  পৃথক ঘটনায় চট্টগ্রামে ৪ জনের মৃত্যু

  চট্টগ্রামে ইলেকট্রনিক্স পণ্যের গুদামে অগ্নিকাণ্ড

  বাঘাইছড়িতে ব্রাশফায়ারের ঘটনা তদন্তে কমিটি

  চট্টগ্রামে ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১

  উপজেলা নির্বাচনে তিন পার্বত্য জেলায় সেনা মোতায়েন করা হবে-ইসি সচিব

  চট্টগ্রামে ভিওআইপি সরঞ্জামসহ গ্রেফতার-২

  হাইটেক পার্কের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন আইসিটি মন্ত্রী

  চসিকের সাথে চুক্তিঃ মেয়র নাছিরের হস্তক্ষেপে নগরীতে হচ্ছে প্রথম হাইটেক পার্ক

  সচেতনতা বৃদ্ধিতে নারী সমাবেশের উদ্যোগ নিচ্ছেন সিটি মেয়র

  আন্তর্জাতিক নারী দিবসে চট্টগ্রামে পার্বত্য দুই নারী সংগঠনের বিক্ষোভ সমাবেশ

  চট্টগ্রামে ইউএসএআইডি'র উন্নয়ন কর্মসূচি পরিদর্শন করলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডাকসু নির্বাচনের সঙ্গে একাদশ সংসদ নির্বাচনের তুলনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এতে ৩০ ডিসেম্বরের ‘ভোট ডাকাতি’র পুনরাবৃত্তি ঘটেছে। আপনি কি তা মনে করেন?