বুধবার, ২৩ জানুয়ারী ,২০১৯

Bangla Version
SHARE

শনিবার, ০৩ নভেম্বর, ২০১৮, ০৮:৩৪:৩৩

ব্যান্ড সংগীতের ইতিহাসে আইয়ুব বাচ্চু অমর হয়ে থাকবেন

ব্যান্ড সংগীতের ইতিহাসে আইয়ুব বাচ্চু অমর হয়ে থাকবেন

বিনোদন ডেস্কঃ-প্রয়াত জনপ্রিয় শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুকে স্মরণ করা হলো তারই গাওয়া কালজয়ী গান পরিবেশন এবং তার জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনার মধ্যদিয়ে। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাংলা ব্যান্ড সংগীতের ইতিহাসে আইয়ুব বাচ্চু অমর হয়ে থাকবেন। ব্যান্ড সংগীতের মাধ্যমে তিনি মানুষের জীবনের ভাল-মন্দ, সুখ দুঃখের বাস্তবতাকে ধারণ করেছেন। এ কারণেই তিনি অনেক শিল্পীর চেয়ে ব্যতিক্রম। আর ব্যক্তি আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন বড়ই মানবতার দূত। তার মৃত্যু দেশবাসীকে কষ্ট দিয়েছে।
বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক পরিষদ আয়োজিত ‘বাংলাদেশের সংগীতাঙ্গন ও একজন আইয়ুব বাচ্চু” শীর্ষক অনুষ্ঠানে বক্তারা এ বক্তব্য রাখেন। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে গতরাতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন গীতিকার ও সংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব গাজী মাজহারুল আনোয়ার।
তিনি বলেন, ব্যান্ড সংগীতে আইয়ুব বাচ্চু অমরত্বের আসন নিয়েছেন। তার অসংখ্য গান মানবিকধারার। এ সব গান লাখ লাখ শ্রোতাকে আকৃষ্ট করেছেন। সংগীতের মূলধারা সাশ্রীয় ও লোকজকে তিনি ধারণ করেছেন। মানুষের অন্তরের কথাকে গানে রুপায়ন করেছেন। এ কারণেই তাকে আমরা ভুলতে পারবো না।
শিল্পী কুমার বিশ্বজিত্ বলেন, আমার বন্ধু বলে কথা নয়, শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু ভিন্নধারার ব্যান্ড শিল্পী। তার বিপুল সংখ্যক গান আমাদের সংগীত জগতের কালজয়ীর আসন নিয়েছেন। এ সব গান তো কোনদিন হারিয়ে যাবার নয়। আর ব্যক্তি বাচ্চু অনেকের চেয়ে আলাদা ব্যক্তিত্ব। সংগীতের কোন মানুষ তার সহায়তা চেয়ে বিমুখ হননি।
স্মরণ সভায় আরও বক্তব্য রাখেন গীতিকার হাসান মতিউর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা নূর মোহাম্মদ, চিত্র নায়িকা নূতন, শিল্পী তপন চৌধুরী, শিল্পী মুজিব পরদেশী, গীতিকার লিটন অধিকারী ও গাজী কামরুজ্জামান। সভাপতিত্ব করেন পীরজাদা শহীদুল হারুন। উপস্থাপনা করেন গীতিকার আলী আশরাফ আকন্দ।
আলোচনা শেষে শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর বেশ কয়েকটি কালজয়ী গান পরিবেশন করেন বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক পরিষদের শিল্পীরা। শিল্পীরা হচ্ছন মেহেরুন আশরাফ, আজমা সুরাইয়া শিল্পী, সোনিয়া এঞ্জেলিনা, এম এ তাহের ও ওমর ফারুক । খবর বাসস।

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বৈষম্য কমাতে নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালুর পরামর্শ দিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান। এটা করা হলে বৈষম্য কমবে বলে মনে করেন?