রবিবার, ১৬ জুন ,২০১৯

Bangla Version
SHARE

শুক্রবার, ১২ এপ্রিল, ২০১৯, ০৭:৫২:৩৬

বণার্ঢ্য আয়োজনে বান্দরবানে তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের ফুল বিঝু ও ঘিলা খেলা

বণার্ঢ্য আয়োজনে বান্দরবানে তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের  ফুল বিঝু ও ঘিলা খেলা

বান্দরবানঃ-পার্বত্য জেলা বান্দরবানে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ গোষ্টি সম্প্রদায়ের জনসাধারণ পুরাতন বছরকে বিদায় আর নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে শুরু করেছে নানা কর্মসুচী।
শুক্রবার সকালে বান্দরবানের সাংগু নদীর তীরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টির তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের তরুণ তরুনীরা পানিতে ফুল ভাসিয়ে শুরু করে ফুল বিঝু উৎসবের। এসময় বিভিন্ন পাড়া ও গ্রামের তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের যুবক-যুবতীরা একত্রিত হয়ে পানিতে ফুল ভাসিয়ে পুরাতন গ্লানি মুছে ফেলে নতুন বছরকে স্বাগত জানায়। পুরোনো বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর এই আনন্দ এখন বইছে পুরো পার্বত্য জেলা বান্দরবানে।
ফুল বিঝু শেষ করে তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের তরুণ তরুণীরা জড়ো হয় বান্দরবান সদরের বালাঘাটা বিলকিছ বেগম উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে, এসময় তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের তরুণ তরুণীরা মেতে ওঠে ঘিলা খেলা উৎসবে।
তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের বিশ্বাস আদিকালে এক প্রেমিক যুগল এই ঘিলা খেলা খেলে তাদের ভালোবাসা পরিপূর্ণ করেছিল, আর এই বিশ্বাস থেকেই তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায় প্রতিবছরই এই ঘিলা খেলায় মেতে ওঠে। ঘিলা খেলা হলো জঙ্গলি লতায় জন্মানো এক প্রকার বীজ। এই বীজ দিয়ে তঞ্চঙ্গ্যারা খেলা করে। তঞ্চঙ্গ্যারা বিশ্বাস করে, ঘিলার লতার ফুল থেকে এই বীজের জন্ম আর পৃথিবীতে যারা জন্ম গ্রহন করে তারাই এই বীজ দেখতে পায়। আর বীজের ব্যবহারে অপদেবতা সহ সকল দু:খ চলে যায়, আর নিজ নিজ পরিবারে সুখ শান্তি নেমে আসে, তাই প্রতিবছর বিজুর দিনে তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায় পুরাতন বছরকে বিদায় জানিয়ে নতুন বছরের আগমনে এই ঘিলা খেলার মাধ্যমে সুখ শান্তির প্রত্যাশা করে।
প্রতিবছরের মত এবারে ও বর্ণাঢ্য আয়োজনে এই ঘিলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে, আর জেলা ও উপজেলার মোট ২৬ টি টিম এই ঘিলা খেলায় অংশ নিচ্ছে। ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দিপনার সাথে এই উৎসব আয়োজন করতে পারায় মহা খুশি আয়োজকেরা। জাতীয় ঘিলা খেলা গোল্ডকাপ টুর্ণামেন্ট ২০১৯ইং এর সদস্য সচিব উজ্জ্বল তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, প্রতিবছরের মত এবারে ও বর্ণাঢ্য আয়োজনে আমাদের তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায় নানা আয়োজনে এই ঘিলা খেলা ও ফুল বিঝু উদযাপন করছে। পুরাতন বছরকে বিদায় আর নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে প্রতিবছরই আমরা এই আয়োজন করে থাকি, আর এই বর্ণাঢ্য আয়োজনে তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের সাথে সাথে পার্বত্য এলাকায় বসবাসরত সকল সম্প্রদায়ের জনসাধারণ একত্রিক হয়ে সকল আয়োজনে উৎসব মুখর পরিবেশে অংশ নেয়।
নানা আনুষ্টানিকতার মধ্য দিয়ে পার্বত্য এলাকায় বসবাসরত ম্রো, তঞ্চঙ্গ্যা, চাকমা, মারমাসহ ১১টি ক্ষুদ্র নৃ গোষ্টি বিভিন্ন আয়োজনে মধ্য দিয়ে পুরাতন বছরকে বিদায় আর নববর্ষকে বরণ উদযাপন করবে, আর ১৬ এপ্রিল নানা ধর্মীয় অনুষ্টানের মধ্য দিয়ে এই আয়োজনের সফল সমাপ্তি ঘটবে।

এই বিভাগের আরও খবর

  বান্দরবানে পুলিশ সদস্য দোলনের সহায়তায় নতুন জীবন পেলেন ইসলামপুরে মোঃ হোসেন

  বান্দরবানে তুলা চাষ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে দুইদিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ শুরু

  লামায় মৌচাক কো-অপারেটিভ এর ২৪তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

  চাঞ্চল্যকর ইমন হত্যায় বান্দরবানের সাবেক চেয়ারম্যানসহ ৫জন রিমান্ডে

  সংরক্ষিত বনাঞ্চলে রিক্সা চালকের লাশ, পরিবারের দাবী খুন

  বান্দরবানে উচহ্লা ভান্তে কর্তৃক জবর দখলকৃত জায়গা পুনরুদ্ধারের দাবীতে ভুক্তভোগীদের সাংবাদিক সম্মেলন

  লামায় অবৈধ পাথরের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযান

  বান্দরবানে জামায়েত নেতা ও মাসিক বান্দরবান পত্রিকার সম্পাদক মোজাম্মেল হক লিটন আটক

  ময়লা আর্বজনা আর খানাখন্দে সয়লাব আলীকদম বাজারের অলিগলি, ক্রেতা-বিক্রেতাদের দুর্ভোগ

  ময়লা ও আবর্জনার দূগন্ধে সাঙ্গু নদীর পার, দেখার কেউ নেই

  লামায় দেশীয় চোলাই মদ পাচারকালে ২ নারী গ্রেফতার

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ঈদের চাঁদ দেখা নিয়ে বিভ্রান্তির জন্য সরকারের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এটা সুশাসনের অভাবের ফল। আপনি কি তা মনে করেন?