মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ০৮:২১:৪৩

বান্দরবানে জমে উঠেছে আওয়ামীলীগের বীর ও বিএনপির রাজপুত্রের লড়াই

বান্দরবানে জমে উঠেছে আওয়ামীলীগের বীর ও বিএনপির রাজপুত্রের লড়াই

বান্দরবানঃ-জমে উঠেছে বান্দবানে নির্বাচনী প্রচারণা। বীরের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলছে রাজপুত্রের। আসন্ন সংসদ নির্বাচনে বান্দরবান আসনে র্নিবাচনী যুদ্ধে অংশ নেয়া এই বীর হলেন আওয়ামী লীগ থেকে পাঁচবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং। অপরজন বিএনপির সাবেক সাংসদ ও রাজপুত্র সাচিং প্রু জেরী।
এদিকে নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে মাঠের লড়াই ততোই জমে উঠছে। দুই প্রার্থীই চষে বেড়াচ্ছেন পার্বত্য জেলা বান্দরবানের বিভিন্ন দুর্গম জনপদ। তবে নির্বাচনী এ লড়াইয়ে জনসংযোগের দিক থেকে বেশ এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামীলীগের বীর বাহাদুর।
টানা ক্ষমতায় থেকে ব্যাপক উন্নয়ন, সহনশীল রাজনীতিক এবং দীর্ঘদিনের জনসম্পৃক্ততাসহ নানা কারণে এগিয়ে তিনি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগকে বেশ ভালোই কাজে লাগাতে পারছেন বীর বাহাদুর।
আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়, এরই মধ্যে তিনি জনসংযোগ শেষ করেছেন অতিদূর্গম থানচি, রুমা, রোয়াংছড়ির বিভিন্ন প্রত্যন্ত এলাকা। এসব এলাকায় তিনি জাতিধর্ম নির্বিশেষ দিচ্ছেন নানা উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি। অসমাপ্ত উন্নয়ন শেষ করতে টানা ষষ্ঠবারের মতো জয় প্রার্থনা করছেন সবার কাছে। ভোট চাইছেন জনে জনে।
ভোটারদের উদ্দেশ্যে বীর বাহাদুর বলছেন, এবারও জনগণ ভোট দিয়ে নির্বাচিত করলে পাহাড়ের সকল অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করা হবে। উন্নয়নের ক্ষেত্রে আমি কারো সাথে আপোস করি না। পাহাড়ে কাজের অভিজ্ঞতা সবচেয়ে বেশি আমার। এ অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে পাহাড়ে ব্যাপক উন্নয়ন ঘটানোই আমার লক্ষ্য।
তবে, দলের বহিস্কৃত সাধারণ সম্পাদক কাজী মুজিবর রহমান ও সভাপতি প্রসন্ন কান্তি তঞ্চংগ্যাসহ কিছু নেতা আসন্ন নির্বাচনে বীর বাহাদুর বিরোধী প্রচারণার আশঙ্কা করছেন খোদ আওয়ামী লীগেরই অনেক জেষ্ঠ্য নেতা।
এ বিষয়টি কপালে ভাঁজ ফেলেছে আওয়ামী দূর্গে। দীর্ঘদিন আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত এই দুই নেতার বীর বাহাদুর বিরোধী তৎপরতার কারণে এবারের নির্বাচনে নৌকার ভোট বাক্সের হিসেবে গড়মিলের আশঙ্কা রয়েছে বলে অনেকে মনে করছেন। শেষ সময়ে এসে দলীয় প্রচারের কাজে এই দুই নেতা সম্পৃক্ত হতে চাইলেও সে সুযোগ দেয়নি জেলা আওয়ামী লীগ।
অপরদিকে আওয়ামী লীগের বন্ধুখ্যাত পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল জনসংহতিও (জেএসএস) এবার বীর বাহাদুরের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে। জেএসএস নেতাকর্মীদের অহেতুক হয়রানী হামলা-মামলার প্রতিশোধ নিতে এবার প্রকাশ্যেই নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থানের ঘোষণা দিয়েছে দলটির অনেক নেতা। সম্প্রতি শান্তি চুক্তির বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে এমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছেন জেএসএস নেতারা। সব মিলিয়ে এবারের আওয়ামী লীগে ভোটের হিসেবে বেশ গড়মিল হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকেই।
অপর দিকে দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা, সরকারের নানা দমন পীড়ন, আর্থিক অনটনসহ নানা কারণে জনগণ থেকে কিছুটা বিচ্ছিন্ন বিএনপি প্রার্থী সাবেক সাংসদ ও তৎকালীন স্থানীয় সরকার পরিষদ চেয়ারম্যান সাচিং প্রু। নির্বাচন নিয়ে বেশ দুশ্চিন্তায় রয়েছেন পাহাড়ের এই নেতাও।

এই বিভাগের আরও খবর

  বান্দরবানে চার ঘন্টা বন্ধ থাকার পর পুনরায় যান চলাচল শুরু

  বান্দরবানে সেনা রিজিয়নের আয়োজনে বিনামুল্যে চক্ষু সেবা কার্যক্রম অনুষ্ঠিত

  আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান ও ম্রো তরুনী ছবি ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় সেই ম্রো তরুনীর সংবাদ সম্মেলন

  লামায় ট্রাক খাদে পড়ে ৩জন গুরুতর আহত

  কেউ রাখেনি হাফিজা’র খবর !

  মডেল পাড়াকেন্দ্র দায়িত্বে থাকা ইউনিসেফের আরো দায়িত্বশীল হওয়া দরকার-পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর

  বান্দরবানে বেশ কয়েকটি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ না হওয়ায় বিপাকে শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীরা

  নাব্যতা সংকটে প্রমত্তা মাতামুহুরী নদী নদীর বুঁকে জেগে উঠেছে অসংখ্য চর

  বান্দরবানে ধুতাঙ্গ সাধক ড.এফ দীপংকর মহাথের এর৪৭ তম জন্ম জয়ন্তী উৎসব উদযাপন

  অবিলম্বে বাঘাইছড়ি ও বিলাইছড়ি হত্যার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় এনে কঠোর সাজা প্রদানের দাবি

  রাঙ্গামাটিতে ধারাবাহিক হত্যাকান্ডের ঘটনায় পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুরের তীব্র নিন্দা

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডাকসু নির্বাচনের সঙ্গে একাদশ সংসদ নির্বাচনের তুলনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এতে ৩০ ডিসেম্বরের ‘ভোট ডাকাতি’র পুনরাবৃত্তি ঘটেছে। আপনি কি তা মনে করেন?