মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ০৭ মার্চ, ২০১৯, ০৮:২০:৩৪

৩ এপ্রিল পবিত্র শবে মেরাজ

৩ এপ্রিল পবিত্র শবে মেরাজ

ধর্ম ডেস্কঃ-রজব মাসের চাঁদ দেখা না যাওয়ায় আগামী ৯ মার্চ শুরু হবে হিজরি সনের রজব মাস। ফলে আগামী ৩ এপ্রিল (২৬ রজব) পবিত্র শবে মেরাজ পালিত হবে।
বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠক থেকে এ সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন এ তথ্য জানিয়েছেন।
ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মুকাররম সভাকক্ষে অনুষ্ঠেয় সভায় সভাপতিত্ব করবেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব অ্যাডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লাহ।
এছাড়া বাংলাদেশের আকাশে কোথাও পবিত্র রজব মাসের চাঁদ দেখা গেলে তা জানানোর জন্য অনুরোধ জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।
মহান আল্লাহর নির্দেশে হজরত জিবরাইল (আ.) কে সঙ্গে নিয়ে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (স.) ঊর্ধ্বাকাশে গমন করেন।৬২০ খ্রিস্টাব্দে ২৬ রজব রাতে মহানবী (সা.) এর সঙ্গে সরাসরি আল্লাহর সান্নিধ্য লাভের অলৌকিক এ ঘটনা ঘটে। রফরফ নামক বিশেষ বাহনে করে ৭০ হাজার নূরের পর্দা পেরিয়ে আরশে আজিমে মহান আল্লাহতায়ালার সান্নিধ্য লাভ করেন। এরপর উম্মতের জন্য পাঁচওয়াক্ত নামাজের হুকুম নিয়ে ফিরে আসেন পৃথিবীতে।
একই সময়ে মহানবী (সা.) সৃষ্টি জগতের সবকিছুর রহস্য অবলোকন করেন। আরবি ভাষায় মেরাজ অর্থ হচ্ছে সিঁড়ি। আর ফার্সি ভাষায় এর অর্থ ঊর্ধ্ব জগতে আরোহণ।

এই বিভাগের আরও খবর

  পবিত্র হজের মূলপর্ব শুরুঃ লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখরিত আরাফাত ময়দান

  রাঙ্গামাটিতে ঈদ-উল-আযহার ৫টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে

  হাজিরা মিনায়, আগামীকাল পবিত্র হজ

  ১৭ লাখ হাজি মক্কায়

  চাঁদ দেখা গেছে, ঈদুল আজহা ১২ আগস্ট

  হজযাত্রীদের ফ্রি সিম কার্ড ও ইন্টারনেট সেবা দিচ্ছে সৌদি আরব

  সৌদিতে পৌঁছেছেন ৬৩ হাজার বাংলাদেশি হজযাত্রী, এ পর্যন্ত ১২ জনের মৃত্যু

  হজ পালনে ৫৯ হাজার ৮২৫ হজযাত্রী সৌদিতে

  সৌদি পৌঁছেছে ৪০ হাজার হজযাত্রী, আরও ২ জনের মৃত্যু

  রাঙ্গামাটিতে অবস্থিত তিন শতাধিক বৌদ্ধ বিহারে বিনামূল্যে ৪৪টি ধর্মীয় গ্রন্থ ত্রিপিটক বিতরণ

  বৃষ্টি ও বন্যাকে উপেক্ষা করে বান্দরবানে সনাতন ধর্মালম্বীদের শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেবের উল্টো রথযাত্রার সমাপ্তি

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তির প্রেক্ষাপটে আইইডিসিআরের সাবেক পরিচালক মাহমুদুর রহমান বলছেন, মৃত্যুর ঘটনাগুলো ‘রিভিউ’ করার কোনো প্রয়োজন নেই, চিকিৎসকদের কথাই যথেষ্ট। আপনি কি তাকে সমর্থন করেন?