মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯, ০৮:৪৫:১৮

দীর্ঘ ৫৭ বছর ধরে একটি ব্রিজের দাবি বাস্তবায়িত করেনি কেউঃ ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে এলাকাবাসী

দীর্ঘ ৫৭ বছর ধরে একটি ব্রিজের দাবি বাস্তবায়িত করেনি কেউঃ ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে এলাকাবাসী

মিল্টন বাহাদুরঃ-রাঙ্গামাটির পৌর এলাকার ৩নং ওয়ার্ডের মাঝেরবস্তিস্থ সদর পুলিশ ফাঁড়ি এলাকায় একটি ব্রিজের অভাবে বাঁশের সাঁকো দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে এলাকাবাসী। এতে যে কোন সময় দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে।
জানা গেছে, রাঙ্গামাটির মাঝেরবস্তি এলাকার পুলিশ ফাঁড়ি এলাকার কাপ্তাই হ্রদের কারণে র্দীঘ ৫৭ বছর ধরে স্থানীয় বাসিন্দারা নদী পারাপরের জন্য জোড়াতালি দেয়া বাঁশের  একটি সাঁকো এক মাত্র ভরসা। এই বাঁশের সাঁকো দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হন উক্ত এলাকার বাসিন্দিারা। তবে কাপ্তাই হ্রদের পানির স্তর নিচে নেমে গেলে চলাচল স্বাভাবিক হলেও প্রতি বর্ষা মৌসুমে ৪ মাস রাস্তাটি পানিতে তলিয়ে গেলে স্থায়ীরা আবারো নতুন করে বাঁশের সাঁকো তৈরী করে সেই সাঁকো দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্কুল-কলেজ গামী শিক্ষার্থীসহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষ যাতায়াত করতে হয়। আর প্রতি বছর এই বাঁশের সাঁকো তৈরী করতে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা ব্যয় করে এলাকাবাসী।
স্থানীয়রা জানান, ভৌগলিক কারনে রাঙ্গামাটির মাঝেরবস্তি সদর পুলিশ ফাঁড়ি এলাকায় পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের অবহেলিত জনপদের মধ্যে এই একটি এলাকা। এখানে কখনো উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি। জেলা সদরের বিভিন্ন এলাকায় উন্নয়নের ছোয়া লাগলেও এই এলাকায় কোন উন্নয়ন হচ্ছে না। আর মাঝেরবস্তি সদর পুলিশ ফাঁড়ি এলাকাটি ঘনবসতি এলাকা হওয়ায় সেখানে চলাচলের রাস্তা সরু হওয়ায় কোন প্রকার অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে সেখানে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি পাড়ায় ঢুকলে সেখানে বের হয়ে যাওয়ার কোন রাস্তা নেই। আর এলাকায় কেউ যদি অথাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে তাকে সেই সাঁকো দিয়ে তাৎক্ষণিক হাসপাতালে নিয়ে যেতে পারা দূর্রহ ব্যাপার।
স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ঘনবসতি এলাকা হলেও যোগাযোগ ব্যবস্থার তেমন কোন উন্নয়ন না হওয়ায় রাষ্ট্রের অনেক জরুরী সুযোগ-সুবিধা ও সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে এসব এলাকার সাধারণ মানুষগুলো। এ যেন বাতির নীচে অন্ধকার। যোগাযোগ ব্যবস্থার এই আধুনিকতার যুগে এসে স্বাধীনতার ৪৭ বছর পার হলেও রাঙ্গামাটি শহরের ৩নং ওয়ার্ডের মাঝেরবস্তির পুলিশ ফাঁড়ি নামক স্থানে নদীর ওপর আজও কোন ব্রিজ নির্মান হয়নি। একটি ব্রিজের অভাবে দীর্ঘদিন ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কখনো নৌকা আবার কখনো বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারাপার হয়  স্কুল-কলেজ,  ছাত্র-ছাত্রীসহ এলাকার মানুষদের। বন্যা ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগে বছরের বেশির ভাগ সময় ধরে বন্যার পানি চার দিকে থই থই করে। তখন পারিবারিক প্রয়োজনে যাতায়াতের একমাত্র ভরসা হয়ে দাঁড়ায় জরাজীর্ণ বাঁশের সাঁকো অথবা ভাড়ায় চালিত নৌকা। শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই হ্রদের পানি কমে গেলেও পানি-কাদায় একাকার হলেও হেঁটেই এলাকার মানুষ তাদের প্রয়োজনের তাগিদে তবলছড়ি বাজার, রিজার্ভ বাজার ও বনরূপা বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত করে।
এব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা অলি আহমেদ জানান, যুগের পর যুগ এই বাঁশের সাঁকো দিয়ে এলাকার মানুষ কষ্ট করে পারাপার হলেও  এখানে একটি সেতু নির্মাণ এলাকাবাসীর দাবি থাকলেও কারো যেন মাথা ব্যথা নেই। প্রতি বছর কাপ্তাই হ্রদের পানি বৃদ্ধি পেলে প্রায় জ্জ মাস জরাজীর্ণ বাঁশের সাঁকো অথবা ভাড়ায় চালিত নৌকা দিয়ে পারাপার করতে হয়। অন্যদিকে প্রতিবছর এই বাঁশের সাঁকো তৈরী করতে গজ্জা দিতে হচ্ছে প্রায় ১০/১৫ হাজার টাকা। অনেক সময় বাঁশের এই সাঁকো তৈরী করতে সময় লাগার কারণে তারা ভাড়ায় চালিত নৌকা দিয়ে যাতাযাত করতে হয়। এতে করে সময়ে কারণে গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজ করতে হিমশীম খেতে হয়।
মাঝেরবস্তির পুলিশ ফাঁড়ি এলাকার বাসিন্দা বাবুল শুক্লা দাশ ও সুজন ত্রিপুরা জানান, এই এলাকার হঠাৎ করে কেউ অসুস্থ হলে হাসপাতাল নেয়া অনেক কষ্ট হয়ে পড়ে। আবার এলাকায় মধ্য রাতে কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে বা গর্ভবতীদের নিয়ে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। আর এই পাড়ার চলাচলরত রাস্তা সরু হওয়ার কারণে যে কোন সময় আগুন লাগলে বা বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটলে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ও আইন শৃংখলা বাহিনী পৌঁছাতে বেগ পেতে হবে। তাই এখানে প্রশাসনের কাছে একটি ব্রিজ নির্মাণের দাবি আমাদের দীর্ঘ দিনের। দীর্ঘ ৫৭ বছরেও দাবি কেউ বাস্তবায়িত করেনি। যার জন্য এলাকাবাসীকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। আমরা এলাকাবাসীর পক্ষে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই জরুরি ভিত্তিতে একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হলে সকল শ্রেণী পেশার মানুষ এ দুর্ভোগ থেকে রক্ষা পাবে।

এই বিভাগের আরও খবর

  রাঙ্গামাটির খাদ্য অফিসে প্রতি সিডিউল ৩শ টাকা বেশী নেয়ার অভিযোগ!

  রাঙ্গামাটি ডিসি অফিস সংলগ্ন এলাকায় প্রকাশ্যে ধুমপান করার দায়ে ৬ ব্যক্তিকে জরিমানা

  পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে গ্রীষ্মকালীন টমেটো উৎপাদন বিষয়ক কৃষক প্রশিক্ষণ

  একটি ব্রীজের অভাবে পাঁচ গ্রামের মানুষের চরম দূর্ভোগ

  রাঙ্গামাটি কলেজ গেইট এলাকার জমি বিরোধ নিয়ে প্রয়াত ডা.একে দেওয়ান পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

  রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সাথে গুর্খা সম্প্রদায়ের সৌজন্য সাক্ষাৎ

  রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা এলাকায় পারিবারিক কলহের জের ধরে রাজমিস্ত্রীর বিষ পানে আত্মহত্যা

  শিক্ষকদের পাঠদানের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের মাঝে সঠিক মুল্যবোধ প্রদান করতে হবে-একে এম মামুনুর রশিদ

  দখলকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা না হলে ১৭ সেপ্টেম্বর সড়ক অবরোধ-সংবাদ সম্মেলনে এ্যাড.দীপেন দেওয়ান

  মোটরসাইকেলের ধাক্কায় কাপ্তাই রাইখালীর ব্যবসায়ী সুসঙ্গ ভট্টাচার্য্যরে মৃত্যু

  প্রতিষ্ঠার ৩৫ বছরে এমপিও ভূক্ত না হওয়ায় হতাশ চন্দ্রঘোনা কেআরসি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তির প্রেক্ষাপটে আইইডিসিআরের সাবেক পরিচালক মাহমুদুর রহমান বলছেন, মৃত্যুর ঘটনাগুলো ‘রিভিউ’ করার কোনো প্রয়োজন নেই, চিকিৎসকদের কথাই যথেষ্ট। আপনি কি তাকে সমর্থন করেন?