সোমবার, ১৯ আগস্ট ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৯, ০৩:০৬:৪১

রাঙ্গামাটিতে মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, আলোচনা সভা ও মাছের পোনা অবমুক্তকরণ

রাঙ্গামাটিতে মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, আলোচনা সভা ও মাছের পোনা অবমুক্তকরণ

রাঙ্গামাটিঃ-‘মৎস্য সেক্টরে সমৃদ্ধি, সুনীল অর্থনীতির অগ্রগতি’ এই প্রতিপাদ্যের আলোকে বর্ণাঢ্য র‌্যালীর মধ্যদিয়ে রাঙ্গামাটিতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উৎযাপনের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকালে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে রাঙ্গামাটি জেলা মৎস্য অধিদপ্তর, জেলা পরিষদ এবং জেলা তথ্য অফিস এর যৌথ উদ্দ্যেগে র‌্যালী ও জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন করেন রাঙ্গামাটি সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার।
র‌্যালীটি রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা রাজবাড়ী ঘাট সংলগ্নে গিয়ে শেষ হয় এবং রাজবাড়ী ঘাটেই মাছের পোনা অবমুক্তিকরণ করা হয়। পোনা অবমুক্তিকরণ শেষে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
মৎস্য বিষয়ক আহ্বায়ক ও রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য সাধন মনি চাকমার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা।
বিশেষ অতিথি হিসেবে রাঙ্গামাটি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শারমিন আলম, জেলা সিভিল সার্জন ডা: শহীদ তালুকদার, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পবন কুমার চাকমা, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ বরুন কুমার দত্ত, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন ইসলাম, বিএফডিসির ডেপুটি ম্যানেজার মো: জাহিদুল ইসলাম প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য দেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইয়াছিন।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, প্রজনন সময়ে কাপ্তাই হ্রদে মে-জুলাই তিনমাস মৎস্য শিকার বন্ধ থাকে। যাতে করে মাছের বংশবৃদ্ধি হয় এবং জেলেরা বড় বড় এবং বেশী করে মৎস্য আহরণ করতে পারে সে লক্ষ্যে বন্ধ থাকাকালীন জেলেদের সরকার খাদ্যশস্যও প্রদান করে থাকে। কিন্তু প্রায় উপজেলা ঘুরে দেখা যায় এই আইন না মেনে অনেক জেলে নদীতে জাল ফেলে মা মাছ ধ্বংস করছে, যা মোটেই কাম্য নয়। এতে করে জেলেদেরই বেশী ক্ষতি হচ্ছে। পরবর্তীতে নদী থেকে মাছ কম আহরণ হওয়ায় অর্থনৈতিকভাবে তারাই দারিদ্রের শিকার হচ্ছে। তিনি বলেন, আগে এই নদীতে বড় বড় বোয়াল, চিতল’সহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ দেখা যেত কিন্তু সঠিকভাবে বংশ বিস্তার করতে না পারায় এখন তেমনটি আর দেখা যায়না। এর কারণ জেলেরাই। তাদের ডিম পারার স্থান গাছের গোড়াগুলো উপড়িয়ে ফেলা হচ্ছে। তিনি এই তিনমাস মাছ মারা বন্ধ থাকাকালীন মাছ শিকার না করার পরামর্শ দেন জেলেদের এবং মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ উৎপাদনে আগ্রহীদের পরিষদ হতে প্রশিক্ষণ প্রদানের সুযোগ করে দেওয়ার ঘোষণা দেন।
জুরাছড়িতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা
জুরাছড়িঃ-রাঙ্গামাটি জুরাছড়ি উপজেলায় বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভার মধ্যে দিয়ে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদযাপিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকালে মৎস্য অধিদপ্তরের উদ্যোগে র‌্যালী ও উপজেলা পকুরে পোনা অবমুক্ত করা হয়। এর পরই উপজেলা সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাহফুজুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান সুরেশ কুমার চাকমা, বিশেষ অতিথি ভাইস চেয়ারম্যান রিটন চাকমা, বনযোগীছড়া ইউপি চেয়ারম্যান সন্তোষ বিকাশ চাকমা, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মৃনাল কান্তি চাকমা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় বক্তারা বলেন, পাহাড়ের কাপ্তাই হ্রদে এক সময় বিভিন্ন প্রজাতরি মাছ পাওয়া যেত। কিন্ত ক্রমান্যয়ে কিছু অসাধু জেলের কারণে কাপ্তাই হ্রদে মাছ কমে যাচ্ছে।
উপজেলা চেয়ারম্যান সুরেশ কুমার চাকমা বলেন, মাছের বংশবিষ্টার কালিন মাছ মারা বন্ধ রাখতে হবে। মাছ মারা বন্ধ কালিন কেউ মাছ মারার চেষ্টা কিংবা ধরা পরে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অথবা ১ বছরের জেল হতে পারে। সুতরাং মাছ বন্ধকালিন সময়ে মাছ মারা বন্ধ রাখা নিজেদের জন্যও নিরাপদ।
এর আগে ১৭ জুলাই উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তরের কার্যালয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনীময় করেন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মৃনাল কান্তি চাকমা। এ সময় তিনি উপজেলা বাস্তবায়িত বিভিন্ন প্রকল্প বিষয়ে আলোকপাট করেন।
রাজস্থলীতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত
রাজস্থলীঃ-রাজস্থলী উপজেলায় মৎস্য বিভাগের উদ্দ্যোগে গত ১৭ই জুলাই জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত শুরু হয়েছে।
“মাছ চাষের গড়বো দেশ বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” শ্লোগান নিয়ে মৎস্য “সেক্টরের সমৃদ্ধি, সুনীল অর্থনীতির অগ্রগতি” প্রতিপাদ্য নিয়ে গত ১৭ই জুলাই উপজেলা মৎস্য অফিসের প্রেস ব্রিফিং ও ১৮ই জুলাই উপজেলা চত্বরের র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হাসিবুল হাসান সভাপত্বিতে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান উবাচ মারমা, বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অংনুচিং মারমা, (পুরুষ) উচসিন মারমা।
উপজেলা খাদ্য উপ-পরির্দশক মো. আবু নাঈম ভুইয়া সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন, সুরেশ কারবারী, উথিনসিন মারমা, অংনুচিং মারমা প্রমুখ।
কাপ্তাই এ মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, আলোচনা সভা ও মাছের পোনা অবমুক্তকরণ
কাপ্তাইঃ-"মাছ চাষে গড়বো দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ" এই স্লোগান এবং "মৎস্য সেক্টরের সমৃদ্ধি, সুনীল অর্থনীতির অগ্রগতি" এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে কাপ্তাই  উপজেলা মৎস্য বিভাগের উদ্যোগে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৯ এর সপ্তাহব্যাপী কর্মসুচীর অংশ হিসাবে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) উপজেলা চত্ত্বরে  র‌্যালি, উপজেলা পরিষদ রেস্ট হাউসে আলোচনা সভা এবং উপজেলা পরিষদের পুকুরে  মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়।
সকাল ১০ টায় শুরু হওয়া র‌্যালিটি উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপজেলা পরিষদ রেস্ট হাউসে  এসে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। কাপ্তাই উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা সঞ্জয় দেবনাথ এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মফিজুল হক। কাপ্তাই প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক ঝুলন দত্তের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কাপ্তাই উপজেলা আ'লীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অংসুছাইন চৌধুরী, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান উমেচিং মারমা, কাপ্তাই থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নুরুল আলম, উপজেলা মুুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মারফুদুল হক। আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বড়ইছড়ি কর্নফুলি নুরুল হুদা কাদেরী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জয়সীম বড়ুুয়া, মৎস্যচাষী সুজন তনচংগ্যা। এর আগে উপজেলা পরিষদ পুকুরে রুই জাতীয় মাছের পোনা অবমুক্তকরণ করা হয়।
লংগদুতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ শুভ উদ্বোধন ও আলোচনা সভা  
লংগদুঃ-রাঙ্গামাটির লংগদুতে "মৎস্য সেক্টরের সমৃদ্ধি, সুনীল অর্থনীতির অগ্রগতি" এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-১৯ উদযাপন উপলক্ষে শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) লংগদু উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তরের উদ্যোগে উপজেলা সদরে র‌্যালী  উত্তর উপজেলা মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি) মোহাম্মদ মামুন। উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তরের ক্ষেত্র সহকারী নাছির উদ্দিন সোহেল এর উপস্থাপনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, উপজেলা মৎস্য সম্প্রসাণ কর্মকর্তা প্রফুল্ল চন্দ্র রায়।     
প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখে, লংগদু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল বারেক সরকা।  বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মীর সিরাজুল ইসলাম ঝান্টু চৌধুরী,  ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ারা বেগম, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ জাহিদুল ইসলাম, সহকার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ মনিরুজ্জামান।
অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা বিএফডিসি কর্মকর্তা আকবর হোসেন চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহনেওয়াজ চৌধুরী ফারুক,  মৎস্য চাষী মোঃ শাহাবুল আলম, একতা মৎস্যজীবির সভাপতি দারু মিয়া।
সভায়, বক্তারা বলেন, কাপ্তাই হ্রদ আমাদের জাতীয় সম্পদ। এই হ্রদে উৎপাদিত মাছ আমাদের যেমন পুষ্টি যোগান দেয় তেমনি হ্রদের মৎস্য সম্পদ রপ্তানি করে সরকার কোটি টাকার রাজস্ব আয় করে থাকেন। বিশেষ করে কাপ্তাই হ্রদে মাছ বৃদ্ধির জন্য তিন মাস মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকাকালীন সময়ে যাতে কেউ মাছ না ধরে তার জন্য সকল জনসাধারণের প্রতি অনুরোধ জানান বক্তারা।

এই বিভাগের আরও খবর

এই বিভাগের আরও খবর

  রাজস্থলীতে সেনা সদস্য নিহতের ঘটনায় রাজস্থলী-চন্দ্রঘোনা-বান্দরবান সড়কে যৌথবাহিনীর বিশেষ অভিযান, টহল জোড়দার

  রাজস্থলীতে সেনা টহল দলের উপর সন্ত্রাসীদের গুলিবর্ষণঃ স্থল মাইন বিষ্ফোরণ ও গুলিবিদ্ধ হয়ে ৪ সেনা সদস্য আহত

  তিন পার্বত্য জেলা পরিষদকে শক্তিশালী করতে জনবল বৃদ্ধিসহ নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে-সচিব

  রাঙ্গামাটিতে মাদক বিরোধী সচেতনতামুলক ডিজিটাল কিওস্ক এলইডি ডিসপ্লের উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক

  দীর্ঘ ৫৭ বছর ধরে একটি ব্রিজের দাবি বাস্তবায়িত করেনি কেউঃ ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে এলাকাবাসী

  রাঙ্গামাটিতে জেলা প্রশাসনের মাসিক আইন শৃংখলা সভা অনুষ্ঠিত

  জনগনের জানমালের নিরাপত্তার স্বার্থে সরকারের যা করার দরকার তাই করবে-বীর বাহাদুর ঊশৈসিং

  পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের বাস্তবায়নাধীন কৃষদের মিশ্র ফল চাষ পরিদর্শনে পার্বত্য সচিব মোঃ মেসবাহুল ইসলাম

  পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর চিন্তার ফলশ্রুতি-নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা

  কাপ্তাই ট্রাফিক পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১০টি মোটরযান এর বিরুদ্ধে মামলা

  জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের শ্রদ্ধা নিবেদন, শোক র‌্যালী ও আলোচনা সভা

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তির প্রেক্ষাপটে আইইডিসিআরের সাবেক পরিচালক মাহমুদুর রহমান বলছেন, মৃত্যুর ঘটনাগুলো ‘রিভিউ’ করার কোনো প্রয়োজন নেই, চিকিৎসকদের কথাই যথেষ্ট। আপনি কি তাকে সমর্থন করেন?