বুধবার, ২৪ জুলাই ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ৩০ জুন, ২০১৯, ০৯:১০:৪৪

বাঘাইছড়িতে করেঙ্গাতলি বাজারে ফাঁকা গুলি ছুড়ে আতংকঃ ১৫জনকে অপহরণ,পরে ১০জনকে মুক্তি

বাঘাইছড়িতে করেঙ্গাতলি বাজারে ফাঁকা গুলি ছুড়ে আতংকঃ ১৫জনকে অপহরণ,পরে ১০জনকে মুক্তি

বাঘাইছড়িঃ-রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার বঙ্গলতলী ইউনিয়নের করেঙ্গাতলী বাজার থেকে শনিবার (২৯ জুন) সকালের দিকে একদল দুর্বৃত্ত ফাঁকা গুলি ছুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে ১৫জনকে অপহরণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে এর মধ্যে নেওয়ার পথে ও বিকেলে ১০ জনকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন এমএন লারমা গ্রুপের জনসংহতি সমিতিকে (সংস্কারপন্থী) এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে সংগঠনটির পক্ষ থেকে অস্বীকার করা হয়েছে।
জানা গেছে, উপজেলার বঙ্গলতলী ইউনিয়নের  শনিবার গতকাল করেঙ্গাতলী বাজারে হাটের দিনে  সকাল সাড়ে আট টার দিকে বাজার জমে উঠতেই হঠাৎ ৮ থেকে ১০জন অস্ত্রধারী প্রবেশ করে। এসময় দুর্বৃত্তরা ১০ থেকে ১৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে বাজারে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এতে দুর্বৃত্তরা অস্ত্রের মূখে বিভিন্ন গ্রামে থেকে আসা অন্তত ১৫জন ব্যক্তিকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। কাচালং নদী পাড় করে রুপকারী গ্রামের দিকে নিয়ে যাওয়া হয় অপহৃতদের। পরে নেওয়ার পথে ও বিকেলে পূর্ণ সাধন চাকমা (৪০), তপন চাকমা (২৮), মংগে চাকমা, কান্দারা চাকমা, সচারুময় চাকমা, শান্তি কুমার চাকমা, প্রিয়ময় চাকমা অমর চার্য চাকমা, ধন কুমার চাকমা ও সুবেশ চাকমাকে ছেড়ে  দেয় দুর্বৃত্তরা। তবে বঙ্গলতলী ইউনিয়নের বঙ্গলতলী গ্রামের অঙ্গত চাকমা (৪০), একই ইউনিয়নের ডুলুবন্যা গ্রামের সন্তোষ কুমার চাকমা (৪৪), ভালুকমাজ্জ্যা গ্রামের সঞ্চয় চাকমা ( ২৮) ও মারিশ্যা ইউনিয়নের খেদারছড়া গ্রামের অজয় চাকমা (৪৫) ও ভূঁইয়োছড়া গ্রামে অরুন চাকমাকে মুক্তি দেয়নি।
অপহরণকারীরা শনিবার দুপুরে তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য  অপহৃতদেও স্বজন ও গ্রাম প্রধানদের খবর দেয়। পরে গ্রামপ্রধানরা অপহরণকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেন। স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন  অস্ত্রধারীরা সবাই  এমএন লারমা গ্রুপের জনসংহতি সমিতির (সংস্কারপন্থী)  সশস্ত্র কর্মী। তবে বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা) সভাপতি সুরেশ কান্তি চাকমা এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, করেঙ্গাতলী বাজারে ঘটনা ও অপহরণের বিষয়ে তার দল দায়ী নয়। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে দায়ী করা হচ্ছে। এমএন লারমা গণতান্ত্রিক বিশ্বাসী, এধরণের ঘটনার সংশ্লিষ্টতা প্রশ্নেও আসে না।
বঙ্গলতলী ইউয়িন পরিষদের চেয়ারম্যান জ্ঞানজ্যোতি চাকমা জানান, বাজারে আতঙ্ক ছড়িয়ে ১৫জন সাধারণ মানুষকে তুলে নিলেও পরে বিভিন্ন সময় ১০জনকে মুক্তি দেওয়া হয়। বঙ্গলতলী ও মারিশ্যা ইউনিয়নের পাঁচ গ্রাম থেকে ৫জনকে এখনো ছেড়ে দেওয়া হয়নি। তবে তাঁদের স্বজন ও গ্রামের মুরুব্বীরা অপহরণকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন।
বাঘাইছড়ি থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল মঞ্জুর জানান, করেঙ্গাতলী বাজারে দুর্বৃত্তরা ফাঁকাগুলি ছুড়ার ঘটনা শুনেছি। ঘটনার পর বেশ কয়েকজনকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে গিয়ে পরে আবার ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

এই বিভাগের আরও খবর

  জনগনের উন্নয়নের জন্যই জেলা পরিষদ সৃষ্টি-বৃষ কেতু চাকমা

  শেখ হাসিনা ও তার সরকার খেলাধুলনার উন্নতির জন্য বদ্ধ পরিকর-মেয়র আ জ ম নাসির উদ্দিন

  রাঙ্গামাটিতে জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবসের র‌্যালী ও আলোচনা সভা

  যৌথ বাহিনীর অভিযানে কাউখালী বাজার থেকে ইউপিডিএফ (মুল) এর চাঁদা আদায়কারী গ্রেফতার

  জুরাছড়িতে ফলদ বৃক্ষমেলা ও বৃক্ষারোপনঃ পরিবেশ বিপর্যয় রোধে বৃক্ষরোপন

  লংগদুতে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল ও ইউএনও প্রবীর কুমার সংবর্ধিত

  কাপ্তাইয়ে বাংলাদেশ স্কাউটসের শাপলা কাব এওয়ার্ড পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

  লংগদুতে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের ৩জন সাময়িক বহিস্কার

  সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা পাহাড়ে বনায়নে বাধাগ্রস্ত করছে-সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার

  আন্দোলনে পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীঃ রাঙ্গামাটি শহরে আবর্জনার স্তুপ, দুর্গন্ধে নাকাল পৌরবাসী

  বরকলে বিজিবির উদ্যোগে বিভিন্ন মালামাল সামগ্রি ও নগদ অর্থ বিতরন

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

এলডিপি সভাপতি অলি আহমদ বলেছেন, বাংলাদেশে এখন টাকা থাকলে সব রকম অন্যায় করে পার পাওয়া যায়। আপনি কি তা ঠিক মনে করেন?