শনিবার, ২০ জুলাই ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ১৬ জুন, ২০১৯, ০৯:১৬:৩৭

বরকলের প্রতিবন্ধী স্বপ্না খীষার আড়াই বছরেও জুটেনি প্রতিবন্ধীর ভাতা

বরকলের প্রতিবন্ধী স্বপ্না খীষার আড়াই বছরেও জুটেনি প্রতিবন্ধীর ভাতা

পুলিন বিহারী চাকমা, বরকলঃ-রাঙ্গামাটির বরকল উপজেলার ২নং বরকল সদর ইউনিয়নের বেগেনাছড়ি গ্রামের শান্তি রঞ্জন খীষার মেয়ে স্বপ্না খীষা (৩৬) নামে এক শ্রবণ প্রতিবন্ধী কার্ড পাওয়ার আড়াই বছরে অনেক চেষ্টা করেও নিজেকে প্রতিবন্ধী ভাতার আওতায়  আনতে পারেননি। যার কারনে আড়াই বছরেও প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন না এ শ্রবন প্রতিবন্ধী।
জানা যায়- গেল ২০১৬ সালের ১২জানুয়ারী সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সমাজ সেবা অধিদপ্তর থেকে শ্রবন প্রতিবন্ধী হিসাবে কার্ড পায় স্বপ্না খীষা (৩৬)।
সে সময়ে প্রতিবন্ধী কার্ডটি বিতরন করেন বরকল উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তর। কিন্তু প্রতিবন্ধী স্বপ্না খীষা প্রতিবন্ধীর পরিচয় পত্রের কার্ডটি পাওয়ার আড়াই বছরেও সরকারি ভাবে বর্তমান পর্যন্ত কোন প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন না। এ ছাড়াও সরকারি কিংবা বেসরকারি ভাবে কোন সুযোগ সুবিধা জোটেনি এ অভাগা প্রতিবন্ধীর ভাগ্যেই।
প্রতিবন্ধী স্বপ্না খীষা আক্ষেপ করে বলেন, প্রতিবন্ধী কার্ডটি পাওয়ার পর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেম্বার ও উপজেলা সমাজ সেবা অফিসে বার বার যোগাযোগ করেও কোন ফল পায়নি। তাকে প্রতিবন্ধী ভাতার আওতায় আনা হবে বলে নানা ভাবে মিথ্যা আশ্বাস ও প্রতিশ্রুতি দিয়ে  আড়াইটি বছর পাড় করে দিয়েছিল। আর কত দিনে ভাতা পাবেন তাও জানেন না এ শ্রবন প্রতিবন্ধী স্বপ্না খীষা। প্রতিবন্ধী স্বপ্না খীষা আরো বলেন-অতি কষ্টের মধ্যে দিয়ে জীবন যাপন করছেন। তার স্বামীকে নিয়ে সামান্য জুম চাষ ও দিন মজুর করে যা আয় হয় তা দিয়ে তিন ছেলে মেয়ের লেখা পড়ার খরচ ও সংসারে ভরন পোষন করতে হয়।
তার চিকিৎসা করার কোন সুযোগ নেই। টাকা থাকলে ভালো চিকিৎসা করে হয়তো সেই কানে শুনতে পেতো। কিন্তু টাকার অভাবে সেই সুযোগ যেমনি হচ্ছেনা তেমনি সরকারি ভাবে ও কোন সুযোগ সুবিধা জুটছেনা বলে অভিযোগ হতভাগ্যে এ প্রতিবন্ধীর।
বরকল সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কমলেন্দু বিকাশ চাকমা জানান, স্বপ্না খীষা যে প্রতিবন্ধী এবং সে যে ভাতা পাচ্ছেন না তাকে কেউ জানাইনি এবংতিনি জানেন না। তবে এবার যখন জানলেন তখন বিষয়টি দেখবেন বলে জানান।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে-উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ফজলুর রহমান  বলেন, উপজেলার ৫ইউনিয়নে জরীপের আওতায় প্রতিবন্ধী রয়েছে ৯৯৭ জন। প্রতিবন্ধী কার্ড পেয়েছে ৪৪৬জন। বর্তমানে ভাতা পাচ্ছে প্রায় সাড়ে ৩শজন প্রতিবন্ধী। যার কারনে অনেক প্রতিবন্ধীকে কার্ড দেয়ার পরেও ভাতার আওতায় আনা সম্ভব হচ্ছেনা। নতুন করে বর্ধিত করার সুযোগ থাকলে তাদের কে ভাতার আওতায় আনার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

এই বিভাগের আরও খবর

এই বিভাগের আরও খবর

  পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে ১৬০ জন কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে ফলজ চারা ও সবজি বীজ বিতরণ

  বিলাইছড়ি ফারুয়া বাজার স্থানান্তরের বিষয়ে বন বিভাগের সাথে আলোচনা করা হবে-সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার

  রাঙ্গামাটিতে ৭৩ বৌদ্ধ বিহারসহ চিকিৎসা সহায়তার অনুদান প্রদান

  পরিষদের হস্তান্তরিত বিভাগের সকল কর্মকর্তাদের জনকল্যাণে সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করতে হবে-বৃষ কেতু চাকমা

  জুরাছড়িতে বিদ্যুৎ এর দাবীতে বিক্ষোভ ও সমাবেশঃ বিদ্যুৎ বিল বর্জন ও রবিবার বৃহত্তর কর্মসূচী ঘোষণা

  রাঙ্গামাটিতে মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, আলোচনা সভা ও মাছের পোনা অবমুক্তকরণ

  বন্যা পরবর্তী পরিস্থিতিঃ বাঘাইছড়িতে সড়ক পথ ভাঙ্গন, মৎস্য ও কৃষিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

  বরকলে বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শণে সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার, খাদ্যশষ্য ও আর্থিক সহায়তা প্রদান

  রাঙ্গামাটিতে এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮ জন

  আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে মৎস্য খাতের অবদান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ-মোহাম্মদ ইয়াছিন

  পর্যটকদের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারিঃ কাপ্তাই হ্রদের পানির নিচে রাঙ্গামাটির ঝুলন্ত সেতু

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

এলডিপি সভাপতি অলি আহমদ বলেছেন, বাংলাদেশে এখন টাকা থাকলে সব রকম অন্যায় করে পার পাওয়া যায়। আপনি কি তা ঠিক মনে করেন?