বুধবার, ২৬ জুন ,২০১৯

Bangla Version
SHARE

মঙ্গলবার, ১১ জুন, ২০১৯, ০৩:০৭:২১

ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি হিসেবে পার্বত্য গুর্খাদের সরকারী স্বীকৃতি প্রদানঃ সরকারের প্রতি গুর্খা সম্প্রদায়ের কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন

ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি হিসেবে পার্বত্য গুর্খাদের সরকারী স্বীকৃতি প্রদানঃ সরকারের প্রতি গুর্খা সম্প্রদায়ের কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন

রাঙ্গামাটিঃ-পার্বত্য চট্টগ্রামে গুর্খাদের আগমন ১৮৭১ সনে। তখন ব্রিটিশ শাসনামল। পার্বত্য চট্টগ্রামের কুকী জনগন ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষনা করলে তাদের বিদ্রোহ দমনের জন্য অবিভূক্ত ভারত থেকে গুর্খা রেজিমেন্টের সৈন্যদের পার্বত্য চট্টগ্রামে আনা হয়। বিদ্রোহ দমনের পর ব্রিটিশ সরকার গুর্খা সেনাদের মধ্যে যারা পার্বত্য এলাকায় স্থায়ী ভাবে বসবাসে আগ্রহী তাদেরসহ নেপাল থেকে গুর্খা পরিবারদের এনে মাইনী ভ্যালী এলাকায় পূনর্বাসন করে ও সেখানে গুর্খা কলোনী স্থাপন করা হয়। যাতে দুর্ধর্ষ কুকীরা গুর্খাদের কলোনী ডিঙিয়ে এপারে মং রাজার এলাকায় আসতে না পারে। (তথ্য সুত্র-এ ফ্লাই অন দ্য হুইল লেখক টি এইচ লুইন)।
পরবর্তীতে ১৯৪৭ সনে দেশ ভাগের পর এসব গুর্খা পরিবারের অনেকেই ভারতে ও নেপালে ফিরে যায়। বাকীরা পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, খাগড়াছড়িসহ বিভিন্ন সমতল জেলায় জীবিকার তাগিদে ছড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে গুর্খারা রাঙ্গামাটি ও বান্দরবান জেলাসহ সমতলের বিভিন্ন জেলায় বসবাস করছে। আর জীবিকার তাগিদে তারা ভিন্ন ভিন্ন পেশায় নিয়োজিত থেকে তাদের জীবন অতিবাহিত করছে।
পার্বত্য চট্টগ্রামের শাসন বিধিতে গুর্খাদের জন্য সুনির্দিষ্টভাবে কিছু লেখা হয়নি। সে কারনে গুর্খারা রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক  সকল পর্যায়ে অবহেলিত। গুর্খাদের মধ্যে নেতৃত্ব না থাকার কারনে তারা তাদের কথা কারোর কাছে বলতে পারছেনা। যাদের উপর তারা ভরসা করেছিল সময় বলে দিচ্ছে যে তারা গুর্খাদের জন্য কতটুকু কি করেছে। তবে পার্বত্য এলাকায় বসবাসরত গুর্খাদের, কারো প্রতি কোন অভিযোগ নেই। সময়ের ব্যবধানে এবং সকলের সহযোগিতায় পার্বত্য গুর্খাদের জন্য সুখবর আসতে শুরু করেছে।
এরই ধারাবাহিকতায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য-২ বাংলাদেশ সচিবালয় ঢাকার ”ক্ষুদ্র নৃগোষ্টি বিশেষ পেশাজীবি বর্সাশ্রিত গোষ্টি ও অনগ্রসর জনগোষ্টির তালিকা প্রনয়ণ” শিরোনমে গত ৩ জুলাই ২০১৮ তারিখে অনুষ্ঠিত সভায় (পত্র নং-৪৩.০০.০০০০.১২৯.৯৯.০৮৬.১৭.২৫৫ তারিখ-০৭ আগষ্ট ২০১৮) ৫০টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির তালিকা সরকারীভাবে অনুমোদন করা হয়েছে, এবং ৩০নং ক্রমিকে গুর্খাদের নাম অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে। আর এ এব্যাপারে পাহাড়ে ও সমতলের বিভিন্ন জেলায় বসবাসরত গুর্খা সম্প্রদায় এর জন্য সদাশয় সরকারের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছেন।
এব্যাপারে রাঙ্গামাটি জেলা গুর্খা কল্যাণ ফাউন্ডেশনের নেতৃবৃন্দরা বলেন, এটি সত্য যে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও এ যাবৎ যারা তিন পার্বত্য জেলায় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি সাংস্কৃতিক ইনিস্টিটিউটের মাধ্যমে পার্বত্য এলাকার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি সমুহের সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করে তারা গুর্খা সম্প্রদায়কে তাদের কোন অনুষ্ঠানে আমন্ত্রন বা অংশগ্রহনের সুযোগ কমেই দিয়ে থাকে। এতে করে গুর্খাদের নিজস্ব সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড নিজেদের মধ্যেই রয়ে গেছে। সরকারের নিম্ন স্তরে সরকারী সিদ্ধান্তের বাস্তবায়নের জন্য নিয়োজিত কর্তৃপক্ষদের উদাসীনতার ফলে সরকারের বহু ভালো কাজের সুফল গুর্খা সম্প্রদায়ের সাধারণ জনগন পাইনা। এতে করে তাদের জীবন জীবিকার নিবার্হ করতে অনেক কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। বিভিন্ন কর্মকান্ডে গুর্খা সম্প্রদায় অবহেলিত হয়ে জীবন যাপন করছে। তাই এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষদের সুদৃষ্টি দিয়ে এগিয়ে আসা দরকার।
তাই পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ ও জেলা পরিষদ আইন সমুহে গুর্খাদের অর্ন্তভুক্তি করা এখন সময়ের দাবী। জেলা পরিষদ সমুহের আগামী সদস্য নির্বাচনে গুর্খারা তাদের প্রতিনিধিত্ব দেখতে চায়। তারা আশা করে আগামীতে চির অবহেলিত এই গুর্খা জনগোষ্ঠির প্রতি সদাশয় সরকার বিশেষ দৃষ্টি রাখবেন বলে আশা প্রকাশ করেন গুর্খা সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দরা।

এই বিভাগের আরও খবর

 

  রাঙ্গামাটির হোটেল ‘সুফিয়া’কে অর্থদন্ড করেছে ভোক্তা অধিদপ্তর

  মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রনে বর্তমান সরকার জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে বদ্ধপরিকর

  রাঙ্গামাটিতে মাদকের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের আরো কঠোর হতে হবে-বৃষ কেতু চাকমা

  সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যার হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া না হলে আবারো হরতাল-অবরোধ

  কেআরসি স্কুলের টিউবওয়েল চুরি ছাত্রছাত্রীর পানীয় জলের কষ্ট

  বরকল খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় অফিস নয় যেন গোয়াল ঘর

  দুর্গম পাহাড়ে বেসরকারী শিক্ষকরা যা করে যাচ্ছেন তা অনুকরণীয় বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে-মোঃ খোরশেদ আলম

  রাঙ্গামাটি রেড ক্রিসেন্টের প্রাথমিক চিকিৎসা, সন্ধান ও উদ্ধার অভিযানের ছয়দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ শুরু

  রাঙ্গামাটিতে আওয়ামীলীগের ৭০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

  ওয়ার্ল্ড পীস এন্ড হিউম্যান রাইটস সোসাইটি রাঙ্গামাটির উদ্যোগে গুণিজন সংবর্ধনা

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির সমালোচনার জবাবে দুই মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন হওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এতে প্রমাণিত হয়েছে যে দেশে বিচার বিভাগ স্বাধীন। আপনি কি তার যুক্তিতে সন্তুষ্ট?