মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ১১ মার্চ, ২০১৯, ০৯:৩৬:১৫

রাঙ্গামাটি পৌরসভার মেয়রের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করলেন রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ,কে,এম মামুনুর রশিদ

রাঙ্গামাটি পৌরসভার মেয়রের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করলেন রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ,কে,এম মামুনুর রশিদ

রাঙ্গামাটিঃ-রাঙ্গামাটি পৌরসভার মেয়রের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করলেন রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ,কে,এম মামুনুর রশিদ। দীর্ঘ ১ বছরেও জনস্বার্থে রাঙ্গামাটি ডিসি বাংলো পার্কের পাশের সিঁড়ি নির্মাণ কাজ না করায় ক্ষোভ জানালেন তিনি।
সোমবার (১১ মার্চ) রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে রাঙ্গামাটি পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আতিকুর রহমান সিড়ির বর্তমান অবস্থার কথা জেলা প্রশাসককে জানাতে গেলে জেলা প্রশাসক তাকে পৌরসভার কোন উন্নয়ন কর্মকান্ড জেলা প্রশাসনের লাগবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন। সকালে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদদের কাছে ধর্মীয় অনুষ্ঠানের দাওয়াত দিতে সাংবাদিকসহ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের কয়েকজনের সামনে জেলা প্রশাসক বলেন, আমি রাঙ্গামাটিতে যোগদানের পর পরই রাঙ্গামাটি ডিসি বাংলো পার্কের কোল ঘেষে কাপ্তাই হ্রদে নামার সিঁড়িটি ভেঙ্গে যাওয়ায় তা নির্মাণের জন্য রাঙ্গামাটি পৌরসভার মেয়রকে অনুরোধ করেছিলাম। তিনি আমার সামনে বসেই একজনকে ফোন করে সিঁড়িটি দ্রুত কাজ ধরার জন্য বলে দেন। কিন্তু বিগত একবছর হয়ে গেলে আজো সিঁড়িটি নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। জেলা প্রশাসক বলেন, এক বছরে আরো বেশ কয়েকবার মেয়রকে সিঁড়ি নির্মাণ করার তাগাদা দিয়েছি কিন্তু এখনো পর্যন্ত কোন সুফল পায়নি। বিভিন্ন ধরনের তালবাহনা করে কাজটি ঝুলিয়ে রেখেছে।
তিনি বলেন, আমি জনগনের স্বার্থের জন্য কথা বলেছি। আমিতো আমার বাংলোর ভিতরে কোন কাজ করতে মেয়রকে অনুরোধ জানাইনি। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রাঙ্গামাটি পৌরসভার কোন উন্নয়ন কর্মকান্ড আমি নিবো না। যে ভাবে হোক আমি যাওয়ার আগে হলেও এই সিঁড়ি নির্মাণ করে জনগনকে এর সুফল ভোগ করাবো। পৌরসভার কোন সাহায্য সহযোগিতা আর দরকার নেই বলে সাফ জানিয়ে দেন তিনি। সিঁড়িটি ভেঙ্গে যাওয়ায় জননিরাপত্তায় ঘেরা বেড়া দিয়ে রাখা হয়েছে।
রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ,কে,এম মামুনুর রশিদ ও রাঙ্গামাটি পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আতিকুর রহমানের কথোকপথনের সময় রাঙ্গামাটির কর্মরত কয়েকজন সাংবাদিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের লোকজন এ সময় রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন এবং তাদের সম্মুখে এইসব কথা বলেন তিনি।
এ বিষয়ে রাঙ্গামাটি পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আতিকুর রহমান বলেন, জেলা প্রশাসক স্যারকে বিষয়টি আমি বলাই সুযোগ পায়নি। স্যার খুবই রাগ করেছে। তিনি বলেন, এখনো ব্রীজের একটু নিচে পানি রয়েছে। কাজ করতে গেলে পানির জন্য সমস্যা হতে পারে তাই করা যাচ্ছে না। আর এখানে বিশাল একটি আর সিসি ওয়াল দিতে হবে তা না হলে আগামীতে পার্কও থাকবে না।
উল্লেখ্য, রাঙ্গামাটি শহরের অনেক পাড়া মহল্লায় নদীর পাড়ে পাকা সিঁড়ি নির্মাণ করা হবে বলে প্রায় দেড় দুই বছর আগে সকল প্রস্তুতি গ্রহন করা হলেও আজও পর্যন্ত এইসব সিঁড়ি নির্মাণে কোন কার্যক্রম দেখা যায়নি। এইসব সিঁড়ি নির্মাণের জায়গায় পর্যন্ত মেয়র সরজমিনে ঘুরে দেখেছেন এবং তিনি এলাকাবাসীকে দ্রুত সিঁড়িগুলো নির্মাণ কাজ হাতে নেয়া হবে বলে জানালেও এলাকাবাসী সিঁড়ির মুখ এখনো দেখেনি।

এই বিভাগের আরও খবর

  জুরাছড়িতে ফলদ বৃক্ষমেলা ও বৃক্ষারোপনঃ পরিবেশ বিপর্যয় রোধে বৃক্ষরোপন

  লংগদুতে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল ও ইউএনও প্রবীর কুমার সংবর্ধিত

  কাপ্তাইয়ে বাংলাদেশ স্কাউটসের শাপলা কাব এওয়ার্ড পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

  লংগদুতে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের ৩জন সাময়িক বহিস্কার

  সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা পাহাড়ে বনায়নে বাধাগ্রস্ত করছে-সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার

  আন্দোলনে পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীঃ রাঙ্গামাটি শহরে আবর্জনার স্তুপ, দুর্গন্ধে নাকাল পৌরবাসী

  বরকলে বিজিবির উদ্যোগে বিভিন্ন মালামাল সামগ্রি ও নগদ অর্থ বিতরন

  প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনায় বাঘাইছড়িতে মুনিরিয়া তবলীগ কমিঠির মানবন্ধনঃ রাউজান জুড়ে বর্বরতা বন্ধের দাবী

  কাপ্তাইয়ে দুর্গত জনগণের মাঝে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের ত্রাণ বিতরণ

  কাপ্তাই লেকে রুলকার্ভের চেয়ে ২০ ফুট পানি বেশিঃ ১৬টি স্পিল দিয়ে দেড় ফুট হারে পানি ছাড়া হচ্ছে

  লংগদুতে তিনদিন ব্যাপী ফলদ মেলা উদ্বোধন

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

এলডিপি সভাপতি অলি আহমদ বলেছেন, বাংলাদেশে এখন টাকা থাকলে সব রকম অন্যায় করে পার পাওয়া যায়। আপনি কি তা ঠিক মনে করেন?