মঙ্গলবার, ১৯ জুন ,২০১৮

Bangla Version
SHARE

বুধবার, ১৩ জুন, ২০১৮, ১১:২৪:১৬

আজ রাঙ্গামাটির ভয়াবহ পাহাড় ধ্বসের ১ বছর

আজ রাঙ্গামাটির ভয়াবহ পাহাড় ধ্বসের ১ বছর

রাঙ্গামাটিঃ-রাঙ্গামাটির ভয়াবহ পাহাড় ধ্বসের আজ ১ বছর পূর্ণ হলো। আজকের এই দিনে ২০১৭ সালের ১৩ জুন ভয়াবহ এই পাহাড় ধ্বসের ৪ সেনা কর্মকর্তাসহ আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে গেছে ১২০ টি তাজা প্রাণ। বিভিষিকা ময় এই দিনটির কথা মনে পড়লে আজো ভয়ে আতংকে উঠে সাধারণ মানুষ। মা-বাবা, ভাই বোনসহ বহু আত্মীয় স্বজন হারিয়ে মানুষ নতুন করে বাঁচতে শুরু করেছে। তার পরও সেই দিনটি সকলকে তাড়া করে ফিরে প্রতিনিয়ত।
এর মধ্যে রাঙ্গামাটি শহরে ৪ সেনা সদস্যসহ ৬৫ জন, কাউখালী উপজেলায় ২৩ জন, কাপ্তাই উপজেলায় ১৮ জন, জুরাছড়ি উপজেলায় ৪ জন ও বিলাইছড়ি উপজেলায় ২ জন মারা গেছে।
এর মধ্যে শিশু হচ্ছে ৩৩ জন, মহিলা ৩০ জন পুরুষ ৪২ জন। এর মধ্যে নিখোঁজ রয়েছে অন্তত ২০ জন। আহত হয়েছে ৮২ জন। এর মধে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বেশ কয়েকজন চলে গেলেও ৩৯ জন রাঙ্গামাটি সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।
পহেলা জুন ঘুর্ণিঝড় মোরা তান্ডব আর লংগদুর অগ্নিসংযোগের ঘটনার পর ১৩ জুন ঘটে যায় রাঙ্গামাটির ইতিহাসের স্মরণকালে ভয়াবহ পাহাড় ধ্বসের ঘটনা। বিছিন্ন হয়ে যায় যোগাযোগ ব্যবস্থা। গাছপালা ও বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙ্গে লন্ডভন্ড হয়ে যায় পুরো শহর। দেখা দেয় চরম মানবিক সংকট। পাহাড় ধ্বসের ৪দিনের মাথায় বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করে এবং রাঙ্গামাটি চট্টগ্রাম সড়কের ৮দিন সড়ক যোগাযোগ বিছিন্ন থাকার পর সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে মানিকছড়ি শালবন এলাকায় বিকল্প সড়ক চালু করে যোগাযোগ পূর্ণস্থাপিত হয়। ফলে স্বাভাবিক হয়ে আসে রাঙ্গামাটি জীবনযাত্রা।
১৩ জুনের ভয়াবহ পাহাড় ধ্বসে সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু ও সম্পদের ক্ষতি হয় রাঙ্গামাটিতে। পাহাড় ধ্বসের ঘটনায় সেনা সদস্যসহ মারা যায় ১২০ জন। আর আহত হয়েছে দেড় হাজারেরও বেশী। ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে প্রায় আড়াই হাজারের মতো।
গত বছর পাহাড় ধ্বসের ফলে রাঙ্গামাটি জেলায় পাহাড় ধ্বসের ক্ষতিগ্রস্তের সংখ্যা দাঁড়িছে ৭২০ পরিবার। ক্ষতিগ্রস্থ ঘর বাড়ির মধ্যে রাঙ্গামাটি সদরে ৯০,কাউখালী-১৯০, নানিয়ারচর-৩০ বরকল-৭০, চিংমরং, ওয়াগ্গার রাইখালী ৩৪০ ক্ষতিগ্রস্থদের শুধুমাত্র কিছু ত্রাণ সামগ্রী ছাড়া আর কিছুই পায়নি ক্ষতিগ্রস্থরা।
অন্যদিকে, রাঙ্গমাটি-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ৯ দিনের মাথায় শুরু হলেও দীর্ঘ ৬ মাস বন্ধ ছিলো রাঙ্গামাটি- কাপ্তাই সড়ক। এছাড়া রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি সড়ক দীর্ঘ ১ মাস পর চালু করতে পারলেও চালু হওয়ার ৪ দিনের মাথায় আবারো অতি বর্ষণের ফলে রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি সড়ক আবারো বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।
রাঙ্গামাটি শহরে গত ৪ দিন ধরে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। বাজারে জ্বালানি তেলের সংকট দিয়েছে। মোবাইল নেটওয়ার্ক বিঘ্ন ঘটায় টেলিযোগাযোগ ব্যহত হচ্ছে। পানি ও বিদ্যুৎ সংকটে মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েছে। রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের বিভিন্ন স্থানে পাহাড়ের মাটি ভেঙ্গে পড়ায় যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।
বর্ষণের ফলে রাঙ্গমাটি-চট্টগ্রাম মহাসড়ক এর শাল বন এলাকায় ১০০ মিটার রাস্তা ৩০ ফুট জায়গা পাহাড়ের নীচে তলিয়ে গেছে। রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি সড়কের বিভিন্ন স্থানে ১০০ মিটার রাস্তা ৪০থেকে ৫০ ফুট গভীরে তলিয়ে গেছে।
খাড়া পাহাড়ে পুনরায় কেটে বাইপাস করে সড়ক তৈরীর চেস্টা করছে সেনা বাহিনী ও সড়ক বিভাাগের কর্মীরা। এছাড়া অভ্যন্তরীন রুটে রাজার হাট, লিচু বাগান, কারিগর পাড়া রাস্তার উপর পাহাড় ধ্বসে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।
গত তিন দিনের একটানা ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলে রাঙ্গামাটির কাপ্তাই হ্রদের পানি উচ্চতা বেড়ে যাওযায় নিম্নাঞ্চলে জেলার বিলাইছড়ির ফারুয়া, জুরাছড়ি এবং বরকলের ভুষণছড়ার নিম্নাঞ্চল বন্যায় প্লাবিত হয়েছে বেশ কয়েক বার। জুরাছড়িতে ৩৩ শতাংশ জমি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।
এতো কিছুর পরও রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে প্রায় তিন মাস আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিলেও প্রশাসনের আশ্বাসের কোন সুফল প্রায় ক্ষতিগ্রস্থরা। এর ফলে রাঙ্গামাটির সাধারণ মানুষের মাঝে প্রশাসনের প্রতি ক্ষোভ জন্মায়।

এই বিভাগের আরও খবর

  বাঘাইছড়িতে বন্যায় ব্যাপক ক্ষতি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এলাকা পরিদর্শন

  বাঘাইছড়িতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে এমএন লারমা গ্রুপের সাবেক এক সদস্য নিহত

  রাঙ্গামাটিতে ধর্মীয় ভাবগাম্বির্য্যের মধ্যে দিয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত

  বিলাইছড়িতে বজ্রপাতে নিহত বর্ষা চাকমা’র পরিবারকে জেলা পরিষদের নগদ অর্থ প্রদান

  বরকলে বন্যা কবলিত এলাকায় জেলা পরিষদের নগদ অর্থ ও বস্ত্র বিতরণ

  রাঙ্গামাটির লংগদুতে ইউপিডিএফের দুই পক্ষের গুলি বিনিময়, নিহত-১, আহত-১

  লংগদুতে পাহাড়ী ঢলের স্রোতে ডুবে ২জনের মৃত্যু

  বাঘাইছড়িতে বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল, ১জনের মৃত্যু, ১৯ আশ্রয় কেন্দ্রে ৭৬৬টি পরিবার

  রাঙ্গামাটির দুইটি বাজারে জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট, ১০ হাজার টাকা জরিমানা

  রাঙ্গামাটিতে হঠাৎ পরিবহন ধর্মঘট, ৭ ঘন্টার মাথায় প্রত্যাহার, ঈদে ঘরমুখো মানুষের দূর্ভোগ

  গভীর রাতে কর্ণফুলী পেপার মিলে ডাকাতির চেষ্টা ৩ ডাকাত আটক

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?