মঙ্গলবার, ১৪ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
SHARE

রবিবার, ১০ জুন, ২০১৮, ০৬:৩৪:০৬

সঠিক নীতিমালা প্রনয়ন করে ক্রীকবাঁধে মৎস্য উৎপাদনে সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের সংম্পৃক্ত করতে হবে-বৃষ কেতু চাকমা

সঠিক নীতিমালা প্রনয়ন করে ক্রীকবাঁধে মৎস্য উৎপাদনে সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের সংম্পৃক্ত করতে হবে-বৃষ কেতু চাকমা

রাঙ্গামাটিঃ-সঠিক নীতিমালা প্রনয়ন করে ক্রীকবাঁধে মৎস্য উৎপাদনে সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করার আহবান জানিয়েছেন রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম মৎস্যচাষ উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ কার্যক্রম পরিচালনা করা গেলে প্রকৃত মৎস্য চাষীরা উপকৃত হবে এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধির ফলে দরিদ্র মৎস্যজীবীদের আয় বৃদ্ধির সাথে সাথে অতিরিক্ত কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির ফলে সাবলম্বী হবে তাদের পরিবার।
রবিবার (১০ জুন) সকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড মিলনায়তনে পার্বত্য চট্টগ্রাম মৎস্যচাষ উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ প্রকল্প (৩য় পর্যায়) এর আওতায় চলমান প্রকল্পের উন্নয়ন কার্যক্রম অবহিতকরণ ও ভবিষ্যৎ করনীয় শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
রাঙ্গামাটি জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ ছরওয়ার জাহাঙ্গীর সভাপতিত্বে কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অরুন কান্তি চাকমা, কাউখালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এস এম চৌধুরী, রাঙ্গামাটি কৃষি স¤প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পবন কুমার চাকমা, রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ সদস্য সাধন মনি চাকমা, কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন। কর্মশালায় প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে মৎস্যচাষ উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ প্রকল্প (৩য় পর্যায়)  প্রকল্প পরিচালক (উপসচিব) মোঃ আবদুর রহমান।
কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা আরো বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের অর্থনৈতিক জীবনমান উন্নয়নে পার্বত্য জেলাগুলোতে পাহাড়ি ঘোনা ও ঝিরির ওপর ক্রীকবাঁধ (ঘোনায় মাছ চাষের জন্য বাঁধ) নির্মাণ করে মৎস্যচাষ কার্যক্রম ও উৎপাদনের প্রকল্পটি হাতে নেয় সরকার। এতে করে পার্বত্য এলাকায় মাছ চাষে ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হচ্ছে এবং অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি ও মাছ চাষের মাধ্যমে ব্যাপক কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হচ্ছে। তাই পার্বত্য চট্টগ্রাম মৎস্যচাষ উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দায়িত্বশীল হয়ে কাজ করার আহবান জানান তিনি।
এসময় মৎস্য প্রকল্প গ্রহন ও বাস্তবায়নে নানা অনিয়ম, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বক্তারা বলেন, এই প্রকল্পের আওতায় যেকটি ক্রিক ও মৎস্য বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে, তাতে সঠিক ও যথাযত তদারকি ছিল না। আর সমিতির মাধ্যমে ক্রিক বা মৎস্য বাঁধ করার কথা থাকলেও ব্যক্তিগত ভাবে অনেকে ক্রীক বা মৎস্য বাঁধ নির্মাণ করেছে যা নিয়মতান্ত্রিক নয়। তাই ব্যক্তিগত কোন ক্রিক বা মৎস্য বাঁধ করা যাবে না। যদি তা করা হয় তা হলে বাতিল করে দেয়া হবে।
বক্তারা প্রশ্ল তুলে বলেন, অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি ও মাছ চাষের মাধ্যমে ব্যাপক কর্মসংস্থানের সৃষ্টির লক্ষ্যে সরকারের পক্ষ থেকে ক্রীক বা মৎস্য বাঁধ নির্মাণে লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয় করা হলেও কাপ্তাই হ্রদে তিন মাস মাছ মারা বন্ধকালীন সময়ে ক্রীক বা মৎস্য বাঁধের মাছগুলো বাজারে নেই কেন। তা হলে এই মাছগুলো কোথায় তা খুটিয়ে দেখতে হবে। তাই এজন্য এলাকার জনপ্রতিনিধিদেরকে সংম্পৃক্ততার মাধ্যমে ব্যবহারের উপযোগি করে বাঁধ দিয়ে ক্রীক করা যায় তা দেখতে হবে এবং যেসব স্থানে ক্রীক বা মৎস্য বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে তা যার যার দায়িত্বে সরজমিনে তদারকি করার আহবান জানান তারা।

এই বিভাগের আরও খবর

  প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য উন্নয়ন তথা তাদের ক্ষমতায়নে সরকার বদ্ধ পরিকর-নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা

  যোগদানকৃত নতুন রিজিয়ন কমান্ডারের সাথে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সৌজন্য সাক্ষাৎকার

  ৩০ লক্ষ শহীদের শ্রদ্ধার্ঘ্যে রাঙ্গামাটিতে পুলিশের উদ্যোগে সবুজায়ন কর্মসূচী

  এতিমখানা ও মোনঘর শিশু সদনে রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের নগদ অর্থ বিতরণ

  বরকলের আইন-শৃঙ্খলা যাতে বিঘ্ন না ঘটে তার জন্য সবাইকে সজাগ থাকতে হবে-সাজিয়া পারভীন

  বর্ণাঢ্য আয়োজনে কাপ্তাইয়ে স্কাউটসের ডে ক্যাম্প অনুষ্ঠিত

  পৌরসভার নির্দিষ্ট স্থানে পশু কোরবানী দিতে সহযোগিতা করুন-আকবর হোসেন চৌধুরী

  বৃষ্টি নেই বাতাস নেই তবুও ঘন ঘন বিদ্যুতের লোডশেডিং রাঙ্গামাটিবাসীর নাভিশ্বাস

  জাতির জনকের স্বপ্ন যাতে বাস্তবায়ন না হয় তার জন্য একটি মহল উঠে পড়ে লেগেছে-ফিরোজা বেগম চিনু এমপি

  যুব সমাজকে সম্পদে রূপান্তর করতে পারলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন সম্ভব-বৃষ কেতু চাকমা

  বরকলে বঙ্গবন্ধুর ৪৩ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?