বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারী ,২০১৯

Bangla Version
SHARE

শুক্রবার, ০৯ নভেম্বর, ২০১৮, ০৭:৫২:৪৬

জুম্মজাতির আন্দোলনের প্রাণশক্তি ও সাবেক সংসদ সদস্যের স্বপ্ন আজো পূরণ হয়নি !

জুম্মজাতির আন্দোলনের প্রাণশক্তি ও সাবেক সংসদ সদস্যের স্বপ্ন আজো পূরণ হয়নি !

সুমন্ত চাকমা, জুরাছড়ি-কাল শনিবার ১০ নভেম্বর। আশি দশকে পার্বত্য চট্টগ্রামের ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নেয় জুম্ম জাতির  এক বেদনার দিন। সাবেক সংসদ সদস্য ও পাহাড়িদের মুক্তিকামী মানবেন্দ্র নারায়ন লারমার ৩৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জুম্ম জাতীয় শোক দিবস। চার বিভেদপস্থীদের হাতে ১০ নভেম্বর মানবেন্দ্র নারায়ন লারমাকে অতর্কিত আক্রমণে নির্মমভাবে শাহাদাৎ বরণ করেন। সেই ৮৩ মর্মান্তিক ট্রাজেডি আজও জুম্ম জাতিকে বাকরুদ্ধ করে দেয়। প্রতি বছর এই দিনে শীতের সাথে বয়ে আনে শোকের বার্তা-১০ নভেম্বর। এই দিনে বিনম্র শ্রদ্ধা, গভীর শোক আর ভালবাসায় ফুলে ফুলে সিক্ত হয় শহীদ বেদী। মানবেন্দ্র নারায়ন লারমা আজও জুম্মজাতির আন্দোলনের প্রাণশক্তি।
তিনিই প্রথম জুম্ম জাতির মানসে প্রগতিশীল নীতি-আদর্শ, চিন্ত-চেতনার বীজ বপন করে দেয়। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, জুম্ম জাতিকে স্ব-সম্মানে অধিকার নিয়ে বেঁচে থাকার জন্য সংগ্রামের কোন বিকল্প নেই। মানবেন্দ্র নারায়ন লারমা শোষিত মানব জীবনের মুক্তির স্বপ্ন দেখেছিলেন। তাঁর উদর, মানবিক, মানবমূখী, জীবনদর্শন আজও জুম্ম জাতির মুক্তি চিত্তের সার্বক্ষনিক আদর্শ। তাঁর নিদের্শিত পথই জুম্মজাতির মুক্তি পথ।  
প্রথম চরম জাতি বিদ্বেষী, আত্মভরী, ফ্যাসীবাদী কুপমন্ডুক শাসক গোষ্ঠীর চাপিয়ে দেয়া অন্যায়-অত্যাচার-নির্যাতন-শোষন-বঞ্চসার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে ছিলেন তিনি। তাঁর সংগ্রাম শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে, শোষক শ্রেনীর বিরুদ্ধে, মানবতা ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম। তাঁর ভাষায়-“যারা মরতে জানে পৃথিবীতে তারা অজোয়। যে জাতি বেঁচে থাকার জন্য সংগ্রাম করতে পারে না, পৃথিবীতে তাদের বেঁচে থাকার কোন অধিকার থাকতে পারে না”
তিনি রক্ষণশীল, পরনির্ভরশীল ও সামন্ত নেতৃত্বের বিরোধিতা করে পার্বত্য চট্টগ্রামের জম্ম জনগণের অধিকার রক্ষায় সাহসী ভূমিকা রাখেন। তবে তাঁর গতিশীল চিন্তা কেবল পার্বত্য চট্টগ্রামের ভৌগোলিক সীমার মধ্যে আবদ্ধ ছিল না। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের মুক্তির সঙ্গে পার্বত্যবাসী জনগণের মুক্তি একই তারে বাঁধা, এ প্রতীতি তাঁর ছিল।
১৯৫৬ সাল থেকে এম এন লারমা ছাত্র আন্দোলনের মাধ্যমে রাজনৈতিক জীবনে পর্দাপন করেন। ১৯৫৮ সালে তিনি ছাত্র ইউনিয়নে যোগদান করেন। ১৯৬০ সালে কাপ্তাই বাঁধ নির্মাণের মাধ্যমে জুম্ম জনগণের অস্তিত্ব বিলোপের লক্ষ্যে শাসকশ্রেণির আগ্রাসী ঔপনিবেশিক তান্ডব ও ভ্রান্ত নীতি তাঁকে গভীরভাবে নাড়া দেয়। ১৯৬৩ সালের ১০ ফেব্রুয়ারী নিবর্তনমূলক আইনে সরকার তাকে গ্রেপ্তার করে; প্রায় তিন বছর কারাভোগের পর এম এন লারমা ১৯৬৫ সালে মুক্তিলাভ করেন। তিনি ১৯৬৬ সালে দীঘিনালা উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে যোগ দেন। ১৯৭০ সালে তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দিতা করে বিপুল বিপুল ভোটে জয়যুক্ত হন। এরপর মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি যুবসমাজকে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিতে উৎসাহিত করেন। সদ্য স্বাদীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ নিয়ে এম এন লারমার ছিল আকাশসমান স্বপ্ন ও গভীর ভাবনা। তিনি বাংলাদেশের সংবিধান রচনার সময় তাঁর সেই স্বপ্ন বারবার উচ্চারণ করেছিলেন। তিনি বলতেন, দেশের সংবিধান জাতিধর্ম-নির্বিশেষে বাংলাদেশের আপামর জনগণের মৌলিক অধিকার সংরক্ষণ করবে এবং সব ধরনের জাতিগত নিপীড়ন, শোষণ-বঞ্চনা অবসান ঘটাবে। কিন্ত তাঁর সেই স্বপ্ন আজও পূরণ হয়নি।

এই বিভাগের আরও খবর

  আগামী প্রজন্মকে ডিজিটাল অগ্রযাত্রায় নিয়ে যেতে প্রতিটি স্কুলে কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন জরুরী-নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা

  পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে সকলকে আরো আন্তরিক হতে হবে-সচিব নূরুল আমিন

  ফিরোজা বেগম চিনুকে আবারো সংসদ সদস্য হিসাবে দেখতে চায় পাহাড়ের নারীরা

  পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে বাংলাদেশে নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ান হাই কমিশনারের সৌজন্য সাক্ষাৎ

  সমাজ ও দেশের উন্নয়ন করতে হলে আদর্শিক ও নৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে-এ কে এম মামুনুর রশিদ

  কাপ্তাইয়ের কেপিএমে ৩ মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে এমডির অফিস ঘেরাও

  রাঙ্গামাটির আসামবস্তি থেকে জেএসএসের চাঁদা কালেক্টর অস্ত্রসহ আটক

  শেখ হাসিনা সুস্থতা কামনায় রাঙ্গামাটি রাজবন বিহারে ধর্মানুষ্ঠান করলেন এক বৃদ্ধা ও তার পরিবার

  কে হচ্ছেন এবার পাহাড়ের সংরক্ষিত নারী নেত্রী! চিনু-শান্তনা নাকি অন্য কেউ ?

  জীবনের ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং কর্মসূচি খুবই মহতী উদ্যোগ ও সত্যি প্রশংসনীয়-এ কে এম মামুনুর রশিদ

  বরকলের দূর্গম গ্রামের মানুষের স্বেচ্ছাশ্রমে ১০ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বৈষম্য কমাতে নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালুর পরামর্শ দিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান। এটা করা হলে বৈষম্য কমবে বলে মনে করেন?