শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৮, ০৯:৪০:১৭

মুক্তির পাওয়ার পর এইচডব্লিএফের দুই নেত্রী রাঙ্গামাটিতে নিজ নিজ বাড়ীতে ফিরেছেন

মুক্তির পাওয়ার পর এইচডব্লিএফের দুই নেত্রী রাঙ্গামাটিতে নিজ নিজ বাড়ীতে ফিরেছেন

রাঙ্গামাটিঃ-১ মাস ১ দিন পর খাগড়াছড়ি থেকে মুক্তির পাওয়ার পর হিল উইমেন্স ফেডারেশনের দুই নেত্রী শুক্রবার (২০ এপ্রিল) রাঙ্গমাটিতে নিজ বাড়ীতে ফিরেছেন। ইউপিডিফের সমর্থিত সংগঠন দিকে হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক মন্টি চাকমা নানিয়ারচর উপজেলার মরাচেঙে এবং একই সংগঠনের জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক দয়াসোনা চাকমা কাউখালী উপজেলার দুর্গম শুকনোছড়ি গ্রামের বাসায় ফিরেছেন। তারা দু জনেই সুষ্ঠ শরীরে রয়েছেন।
শুক্রবার দয়াসোনা চাকমার কাউখালীর শুকনাছড়ির গ্রামের বাড়ীতে তার মুক্তির পাওয়ার কথা জানতে পেরে তার সংগঠনের সহকর্মীরা এবং আত্বীয়-স্বজন ও গ্রামের লোকজন তাকে এক নজর দেখতে তার বাসায় ভিড় জমান। এসময় দয়াসোনা চাকমাকে পেয়ে তার সহকর্মীরা আবেগ-অপ্লুত হয়ে পড়েন।
দয়াসোনা চাকমা অপহরনের দুঃসহ দিনগুলোর কথা উল্লেখ করে আরো বলেন, অপহরণকারীরা শারীরিকভাবে নির্যাতন না করলেও রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়িতে ৫টি স্থান পরিবর্তন করে পায়ে হেটে বিভিন্ন স্থানে আটকে রেখেছে। আটকের সময় কখনো অন্ধকার ঘরে আর কত সময় বনে রেখেছে আবার রাতে অন্ধকারে দুর্গম পথ পায়ে হাটছে হয়েছে। তারা আসামী হলেও সহযোদ্ধার হিসেবে অপহরণকারীরা তাদের সাথে খারাপ আচরণ করেনি এবং তারা ভাল ছিল।
অপহরণকারীরা গণতান্ত্রিক ইউপিডিএফের দাবী করে তিনি আরো বলেন, গেল ১৮ মার্চ অপহরনের দিন নানিয়ারচর উপজেলার হাদামোলা ঘাট এলাকায় রাখা হয়। সেখান থেকে ইঞ্জিন বোটে করে গত ২০ মার্চ অপহরনকারীরা দুজনকে খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে নেয়ার পর অপহরনকারী গণতান্ত্রিক ইউপিডিএফ ও এমএন লারমা গ্রুপের জনসংহতি সমিতির (সংস্কার পন্থী) লোকজনদের হাতে তুলে দেয়। পরে সেখান থেকে দুদিন দুই রাত পায়ে হেটে নিয়ে গিয়ে খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার মেরুং এলাকায় ও বাজে ছড়া একটি কুড়ে ঘরে রাখা হয়। সেখানে অপহরনকারীরা জোর করে স্বাক্ষর ও ভিডিও ধারন করে রাখে যে তারা গণতান্ত্রিক ইউপিডিএফ দ্বারা অপহৃত হননি। প্রসিত বিকাশ নেতৃত্বে ইউপিডিএফের দ্বারা অপহৃত হয়েছে।
তিনি আরো জানান, মুক্তি পাওয়ার আগে দীঘিনালা উপজেলার বড়াদমে তাদেরকে তিন দিন আটকে রাখা হয় তাদের। এরপর গেল বৃহস্পতিবার তাদের খাগড়াছড়িতে গাড়ীতে করে নিয়ে আসার পর তেতুলতলা এপিবিএন স্কুল গেইট এলাকা থেকে তাদের মুক্তি দেয় অপহরণকারীরা।
এদিকে অপর মুক্তি পাওয়া হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক মন্টি চাকমার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তিনি নানিয়ারচর উপজেলার মরাচেঙে-এর নিজ বাড়ীতে পৌছেছেন এবং মা-বাবার সাথে রয়েছেন। তিনি সুষ্ঠ রয়েছেন।
উল্লেখ্য, গেল বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৮টার দিকে খাগড়াছড়ির  তেতুলতলার এপিবিএন স্কুল গেইট এলাকা থেকে ইউপিডিফের সমর্থিত সংগঠন হিল ইউমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক মন্টি চাকমা ও রাঙ্গামাটি জেলা শাখার সাধারন দয়াসোনা চাকমাকে তাদের আত্বীয়-স্বজন ও স্থানীয় জন প্রতিনিধির কাছে মুক্তি  দেয় অপহরনকারীর। গেল ১৮ মার্চ রাঙ্গামাটির সদর উপজেলার কুতুকছড়ি আবাসিক এলাকা থেকে এক দল দুর্বৃত্ত দুই নেত্রীকে অস্ত্রের মূখে অপহরণ করে।

এই বিভাগের আরও খবর

  রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতাল ২৫০শষ্যায় উন্নতি, নতুন ১০তলা ভবনের অনুমোদন

  বঙ্গবন্ধুর খুনীরা যাতে মাথাচারা দিয়ে উঠতে না পারে সেই দিকে সবাইকে সজাগ থাকার আহবান

  জাতীয় ফুটবল দলে পার্বত্য অঞ্চলের মহিলা ফুটবলাররা ভালো ভূমিকা রাখছে-নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা

  নতুন প্রজন্মকে উজ্জীবিত করতে রাঙ্গামাটি প্রতিটি বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হবে-আকবর হোসেন চৌধুরী

  কাউখালীতে বাঙ্গালী গরু ব্যবসায়ী হত্যাঃ ২৫ হাজার টাকার জন্যই খুন!

  জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জীবন নিয়ে কাঠ চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন

  দীর্ঘ ৩৬ বছর ধরে দৈনিক গিরিদর্পণ পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের মুখপাত্র হিসাবে কাজ করেছে-নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা

  যথাযোগ্য মর্যাদায় বরকল, জুরাছড়ি, বিলাইছড়ি, লংগদু ও রাজস্থলীতে জাতীয় শোক দিবস পালন

  শোক র‌্যালী, পুষ্পমাল্য অর্পণের মধ্যে দিয়ে রাঙ্গামাটিতে জাতির জনকের শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত

  প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য উন্নয়ন তথা তাদের ক্ষমতায়নে সরকার বদ্ধ পরিকর-নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা

  যোগদানকৃত নতুন রিজিয়ন কমান্ডারের সাথে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সৌজন্য সাক্ষাৎকার

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

অনগ্রসর বিবেচনায় নারী, নৃগোষ্ঠীদের জন্য জন্য সরকারি চাকরিতে যে কোটা রয়েছে, তা তুলে দেওয়ার পক্ষে মত জানিয়ে কোটা পর্যালোচনা কমিটির প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেছেন, অনগ্রসররা এখন অগ্রসর হয়ে গেছে। আপনি কি তার সঙ্গে একমত?