বুধবার, ১৫ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ১৯ জুন, ২০১৮, ০১:৪১:৪২

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ৯ আসামির বিষয়ে রায় শিগগির

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ৯ আসামির বিষয়ে রায় শিগগির

ডেস্ক রিপোর্টঃ-মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে আরো দুই মামলায় ৯ আসামির বিষয়ে রায় ঘোষণা অপেক্ষায় রয়েছে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিচারিক প্যানেল উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে পৃথক দুই মামলায় ৯ আসামির বিষয়ে রায়ের জন্য অপেক্ষামান (সিএভি) রেখে আদেশ দেয়।
এর মধ্যে একটি মামলায় গত ৩০ মে পটুয়াখালীর ৫ আসামির বিষয়ে যুক্তিতর্ক শেষে যে কোনো দিন রায় (সিএভি) ঘোষণা করবে বলে আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল। এটি হবে যুদ্ধাপরাধের মামলায় ৩৪তম রায়। ২০১৭ সালের ৮ মার্চ এ আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।
আসামিদের সর্বোচ্চ সাজার আর্জি পেশ করে শুনানি করে প্রসিকিউশন। ২০১৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ট্রাইব্যুনাল এ ৫ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। পরোয়ানা জারির পর ৫ জনকেই গ্রেফতার করা হয়। আসামিদের বিরুদ্ধে মুক্তিুযদ্ধকালীন হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগসহ ৬ ধরনের মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও যুদ্ধাপরাধের মামলায় ৩৩তম রায় ঘোষণাও অপেক্ষমান রয়েছে।
৩৩তম মামলায় মৌলভীবাজারের রাজানগর উপজেলার সাবেক মাদ্রাসা শিক্ষক আকমল আলী তালুকদারসহ চারজনের বিরুদ্ধে উভয়পক্ষের যুক্তিতর্কশেষে গত ২৭ মার্চ যে কোন দিন রায় ঘোষণার (সিএভি) জন্য রাখা হয়েছে। এ মামলায় যুক্তিতর্ক শুনানির সময় আসামিদের মধ্যে আকমল আলী তালুকদার হাজির ছিলেন। বাকি তিন আসামি মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার আব্দুন নূর তালুকদার ওরফে লাল মিয়া, আনিছ মিয়া ও আব্দুল মোছাব্বির মিয়া পলাতক।
এ পর্যন্ত ৬৩ মামলায় ট্রাইব্যুনালের তদন্ত টিম তদন্ত শেষে প্রতিবেদন দাখিল করেছে। এর মধ্যে ৩৪ মামলার বিচার শেষ হয়েছে। ৩২টির রায় ঘোষণা করা হয়েছে। ২টি মামলা রায়ের অপেক্ষমান রয়েছে।
এদিকে কয়েকটি মামলায় ট্রাইব্যুনালে রায়ের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত আপিল সুপ্রিমকোর্টে নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে। পর্যায়ক্রমে এসব মামলার শুনানি ও নিষ্পত্তি হবে বলে জানান অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। বাসস

  0

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?