মঙ্গলবার, ১৯ জুন ,২০১৮

Bangla Version
SHARE

বৃহস্পতিবার, ৩১ মে, ২০১৮, ০৮:৩৪:০৬

স্থগিতই থাকছে খালেদা জিয়ার জামিন

স্থগিতই থাকছে খালেদা জিয়ার জামিন

ডেস্ক রিপোর্টঃ-কুমিল্লার নাশকতার দুই মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন স্থগিতই থাকছে। একইসঙ্গে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষককে নিয়মিত লিভ টু আপিল দাখিল করতে বলা হয়েছে।
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের তিন বিচারপতির বেঞ্চ বৃহস্পতিবার (৩১ মে) এ আদেশ দেয়।
সোমবার হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিন দেয়। ওই জামিন স্থগিত চেয়ে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। পরদিন আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত ওই জামিন স্থগিত করে দেয়। আজ শুনানি শেষে আপিল বিভাগ স্থগিতাদেশ বহাল রেখে লিভ টু আপিল দায়ের করতে রাষ্ট্রপক্ষকে নির্দেশ দেয়।
২০১৫ সালের শুরুর দিকে ২০ দলীয় জোটের অবরোধ চলাকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রামে দুষ্কৃতিকারীদের ছোড়া পেট্রোল বোমায় আইকন পরিবহনের একটি বাসের কয়েকজন যাত্রীর অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়। আহত হন আরও ২০ জন। সেসব ঘটনায় দু’টি মামলা করা হয়।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে দুর্নীতির অভিযোগের মামলায় সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয় বিচারিক আদালত। সেই থেকে তিনি কারাবন্দি রয়েছেন পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে।

এই বিভাগের আরও খবর

  দুই মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানি ২১জুন

  খালেদা জিয়ার মানহানির ২ মামলায় হাইকোর্টের আদেশ বহাল

  পরোয়ানা তামিল গ্রহণের নামে ম্যাজিস্ট্রেট অহেতুক কালক্ষেপণ করেছে-হাইকোর্ট

  শাহবাগে র‍্যাবের হাতে আটক ইমরান এইচ সরকার

  নড়াইলে মানহানি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন না মঞ্জুর

  খালেদার জামিন ২৮ জুন পর্যন্ত, প্রডাকশন ওয়ারেন্ট প্রত্যাহার

  যুদ্ধাপরাধের আরো দুই মামলা রায়ের অপেক্ষায়

  শপথ নিলেন হাইকোর্টে নিয়োগ পাওয়া ১৮ অতিরিক্ত বিচারপতি

  স্থগিতই থাকছে খালেদা জিয়ার জামিন

  ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাঃ আসামি আরিফ-ডিউকের পক্ষে যুক্তিতর্ক শেষ

  ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাঃ আসামি আরিফ-ডিউকের পক্ষে যুক্তিতর্ক শেষ

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে কাজ হচ্ছে, এখানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। বাস্তবে তা ঘটবে বলে মনে করেন?