রবিবার, ১৯ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮, ০৬:৩৪:৩২

পুরনো জেলের অফিস কক্ষ খালেদার নতুন ঠিকানাঃ সঙ্গে থাকবেন গৃহকর্মী ফাতেমা

পুরনো জেলের অফিস কক্ষ খালেদার নতুন ঠিকানাঃ সঙ্গে থাকবেন গৃহকর্মী ফাতেমা

ডেস্ক রিপোর্টঃ-পুরনো ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়েছে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে। কারাগারে ঢুকতেই বাম দিকে যে দ্বিতল ভবন- এর নিচতলাতে তাকে রাখা হয়েছে। এখানে আগে কারা কর্মকর্তারা অফিস করতেন। কয়েক দিন আগে কক্ষগুলো ধোয়া মোছা করে পরিষ্কার করা হয়। রায় ঘোষণার পর বেলা ৩টা ১২ মিনিটে খালেদা জিয়াকে র‌্যাব-পুলিশের কড়া পাহারায় কারাগারে নেওয়া হয়। সেখানে আইনজীবীদের সঙ্গে কিছু কথা বলার পর ভেতরে নিয়ে যাওয়া হয় খালেদা জিয়াকে। আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে খালেদা জিয়ার সঙ্গে কারাগারে অবস্থান করবেন তার গৃহকর্মী ফাতেমা।
কারা অধিদফতরের ঢাকা বিভাগের ডিআইজি (প্রিজন্স) তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ‘কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী খালেদা জিয়াকে কারাগারের মূল ফটকের ভেতরে বাম দিকে যে অফিস ভবন রয়েছে, সেখানেই রাখা হয়েছে। এই ভবনটির নিচতলায় পাশাপাশি কয়েকটি কক্ষ রয়েছে। এর একটি কক্ষে তাকে থাকতে দেওয়া হচ্ছে। অন্য কক্ষগুলোতে নিরাপত্তাকর্মীরা অবস্থান করেন। একজন প্রথম শ্রেণির বন্দির যেসব সুবিধা পাওয়ার কথা, সব সুবিধাই তাকে সেখানে দেওয়া হবে। তবে তার সঙ্গে গৃহকর্মী থাকার কোনো নির্দেশনা এখনো কারা কর্তৃপক্ষের হাতে এসে পৌঁছেনি। এমন নির্দেশনা এলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, কারাগারে ভিআইপির মর্যাদা পাবেন খালেদা জিয়া। জেল কর্তৃপক্ষও বিষয়টি তাদের জানিয়েছে। আদালত খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার গৃহকর্মী ফাতেমাকে থাকার অনুমতি দিয়েছে।
কারা সূত্রে জানা গেছে, কারাগারের যে কক্ষটিতে খালেদা জিয়াকে রাখা হয়েছে সেখানে একটি আলমারি ও একটি পালঙ্ক রয়েছে। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার এখানে থাকার সময় সিনিয়র জেল সুপার ওই কক্ষটিতে বসতেন। গতকাল সন্ধ্যায়ই খালেদা জিয়ার ওই কক্ষে একটি টেলিভিশন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে যেটিতে শুধু বিটিভি দেখা যাবে। অন্য কোনো চ্যানেল তিনি দেখতে পাবেন না। কক্ষটির সঙ্গেই একটি বাথরুম রয়েছে। ওই বাথরুমটিরও কিছুদিন আগে সংস্কার করা হয়েছে। একজন ভিআইপি বন্দির যে সুযোগ পাওয়ার কথা তিনি তা সব পাবেন।
রায়ের পর সচিবালয়ে দেওয়া এক প্রতিক্রিয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সামাজিক অবস্থান বিবেচনায় খালেদা জিয়াকে পুরনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়েছে। আপাতত এখানেই খালেদা জিয়াকে রাখা হবে, না-কি পরে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা আছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কোনো কিছু স্থায়ী না, যে ‘কোনো সময় যে কোনো সিদ্ধান্ত হতে পারে। আমরা এখন আপাতত তাকে এখানে রাখছি, পরে অন্য পরিস্থিতি হলে সরিয়ে নেওয়া হতে পারে।’
৩৬ বছরের রাজনৈতিক জীবনে খালেদা জিয়া এর আগে একবারই কারাগারে গিয়েছিলেন। তবে সেটি ছিল সংসদ ভবন এলাকার মধ্যে ডেপুটি স্পিকারের বাসভবনে। ওই ভবনটিকে বিশেষ কারাগার ঘোষণা করে তাকে রাখা হয়। ২০০৭ সালের ৩ সেপ্টেম্বর বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তিনি গ্রেফতার হন। পাশাপাশি আরেকটি ভবনে স্থাপিত বিশেষ কারাগারে ছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের আদেশে মুক্তি পান খালেদা। এরপর ডিসেম্বরে তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

অনগ্রসর বিবেচনায় নারী, নৃগোষ্ঠীদের জন্য জন্য সরকারি চাকরিতে যে কোটা রয়েছে, তা তুলে দেওয়ার পক্ষে মত জানিয়ে কোটা পর্যালোচনা কমিটির প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেছেন, অনগ্রসররা এখন অগ্রসর হয়ে গেছে। আপনি কি তার সঙ্গে একমত?