বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১, ০১:৩৭:০২

বান্দরবানে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে থাকছেন বিদ্রোহীরা

বান্দরবানে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে থাকছেন বিদ্রোহীরা

বান্দরবান:- বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার দুটি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে আজ মঙ্গলবার মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। তবে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় একটি ইউপিতে নির্বাচনী মাঠে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের এক নেতা। অন্য ইউপিতে মনোনয়ন বঞ্চিত প্রার্থী প্রত্যাহারের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেননি বলে জানানো হয়েছে। দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে কেউ প্রার্থী হলে তাঁকে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে বলে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি একেএম জাহাঙ্গীর বলেন, ‘ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের একজন চেয়ারম্যান প্রার্থী থাকবেন। একাধিক প্রার্থীর মাঠে থাকার সুযোগ নেই। যাঁরা দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিদ্রোহী প্রার্থী হবেন তাঁদের দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।’ নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ও দোছড়ি ইউপিতে আগামী ১১ নভেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আজ মঙ্গলবার মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। আজই প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে। নির্বাচনে বিএনপির কোনো প্রার্থী না থাকায় নির্বাচনী মাঠে শুধু আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা রয়েছেন। তবে দুই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পাওয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন একজন। অন্য প্রার্থী রয়েছেন সিদ্ধান্তহীনতায়। উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে প্রার্থী হলে তাঁদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে জেলা আওয়ামী লীগ। উপজেলা থেকে বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে প্রতিবেদন জেলা কমিটিকে দেওয়া হয়েছে। দলীয় সূত্রে জানা যায়, ২ নম্বর বাইশারী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ থেকে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেওয়া হয় বর্তমান চেয়ারম্যান মো. আলমকে। এই ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাহাদুর। কিন্তু মনোনয়ন না পাওয়ায় তিনি ক্ষুব্ধ। চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম বাহাদুর বলেন, ‘দল আমাকে মনোনয়ন দেয়নি। তবে মনোনয়ন প্রত্যাহারের বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নিইনি। আগামীকাল (আজ মঙ্গলবার) পর্যন্ত অপেক্ষা করব। দেখি কী করা যায়।’ এ দিকে ৪ নম্বর দোছড়ি ইউপিতে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইমরানকে। কিন্তু দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. হাবিবুল্লাহ। তাই দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন। দোছড়ি ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান মো. হাবিবুল্লাহ বলেন, ‘ইউপি নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। আমি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করব না। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে থাকব।’ এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যে বিরোধ ও সমন্বয়হীনতার কারণেই দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন বলে ধারণা করছেন তৃণমূলের নেতারা। ইউপি নির্বাচনে সমন্বয়ের দায়িত্ব পান জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক বাহাদুর। নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও জেলা কমিটির সদস্য আবু তাহের বলেন, ‘দলীয়ভাবে একজন প্রার্থী থাকবেন। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে আওয়ামী লীগের আর কারও প্রার্থী হওয়ার সুযোগ নেই। তারপরও কেউ কেউ প্রার্থী হয়েছেন, যা কাম্য নয়। বাইশারী ও দোছড়ি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী থাকার পরও যাঁরা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন, তাঁদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন নির্বাচনের সমন্বয়ক জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক বাহাদুর।’ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি তসলিম ইকবাল বলেন, ‘দল থেকে প্রার্থী নির্বাচন করা হয়েছে। দলের কোনো নেতা যদি দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে প্রার্থী হন, তাহলে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তাঁদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।আজকের পত্রিকা

এই বিভাগের আরও খবর

  বান্দরবানে শিক্ষার্থীদের টিকাদান শুরু

  বান্দরবানের রুমার তিনটিতে নৌকা ও একটিতে বিদ্রোহী প্রার্থীর জয়লাভ

  বান্দরবানের রুমা ও আলীকদমে আজ রাত ১২টা থেকে ২৮ নভেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত পর্যটকদের ভ্রমণ নিষিদ্ধ

  পাহাড়ি কলা যাচ্ছে সারা দেশে

  বান্দরবানে দুর্বৃত্তদের ব্রাশফায়ারে নিহত ১ গুলিবিদ্ধ ১

  বান্দরবানে ইউপি নির্বাচন,প্রথমবারের মতো নারী প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে

  বান্দরবানে শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণে সম্মিলিত প্রয়াসের আহ্বান

  বান্দরবানের লামার দুই প্রার্থীর সমান ভোট আবার নির্বাচন

  বান্দরবানে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের মহা পিণ্ডদান সম্পন্ন

  বান্দরবানের লামায় গলায় ছুরি ধরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণ

  বান্দরবানে জাতীয় মাউন্টেন বাইক প্রতিযোগিতা

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?